পাতা:সংকলন (১৯২৬) - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৫৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


cষ্ণ।তুষ্ণস্থাn மு ஆறு வர் কিন্তু ওটা একটা অবান্তর কথা। আসল কথা এই যে, কৌতুক আমাদের চিত্তের উত্তেজনার কারণ; এবং চিত্তের অনতিপ্রবল উত্তেজনা আমাদের পক্ষে সখজনক। আমাদের অন্তরে বাহিরে একটি সযক্তিসংগত নিয়মশৃঙ্খলার আধিপত্য; সমস্তই চিরাভ্যস্ত, চিরপ্রত্যাশিত; এই সনিয়মিত যক্তিরাজ্যের সমভূমিমধ্যে যখন আমাদের চিত্ত অবাধে প্রবাহিত হইতে থাকে, তখন তাহাকে বিশেষরপে অনুভব করিতে পারি না। ইতিমধ্যে হঠাৎ সেই চারি দিকের যথাযোগ্যতা ও যথাপরিমিততার মধ্যে যদি একটা অসংগত ব্যাপারের অবতারণা হয়, তবে আমাদের চিত্তপ্রবাহ অকস্মাৎ বাধা পাইয়া দনিবার হাস্যতরঙ্গে বিক্ষব্ধ হইয়া উঠে। সেই বাধা সখের নহে, সৌন্দর্যের নহে, সুবিধার নহে, তেমনি আবার অতিদঃখেরও নহে; সেইজন্য কৌতুকের সেই বিশুদ্ধ অমিশ্র উত্তেজনায় আমাদের আমোদ বোধ হয়।" আমি কহিলাম, ‘অনুভবক্ৰিয়া মাত্রই সখের, যদি না তাহার সহিত কোনো গরতের দঃখভয় ও বাথ হানি মিশ্রিত থাকে। এমনকি, ভয় পাইতেও সুখ আছে, যদি তাহার সহিত বাসতবিক ভয়ের কোনো কারণ জড়িত না থাকে। ছেলেরা ভূতের গল্প শুনিতে একটা বিষম আকর্ষণ অনুভব করে, কারণ হংকল্পের উত্তেজনায় আমাদের যে চিত্তচাঞ্চল্য জন্মে তাহাতেও আনন্দ আছে। রামায়ণে সাঁতাবিয়োগে রামের দুঃখে আমরা দুঃখিত হই, ওথেলোর অমলেক অসয়া আমাদিগকে পীড়িত করে, দহিতার কৃতঘ্যতাশরবিন্ধ উন্মাদ লিয়রের মম'যাতনায় আমরা ব্যাথা বোধ করি—কিন্তু সেই দুঃখপীড়া বেদনা উদ্রেক করিতে না পারিলে সে-সকল কাব্য আমাদের নিকট তুচ্ছ হইত। বরঞ্চ দুঃখের কাব্যকে আমরা সখের কাব্য অপেক্ষা অধিক সমাদর করি; কারণ, দুঃখানভেবে আমাদের চিত্তে অধিকতর আন্দোলন উপস্থিত করে। কৌতুক মনের মধ্যে হঠাৎ আঘাত করিয়া আমাদের সাধারণ অনুভবক্লিয়া জাগ্রত করিয়া দেয়। এইজন্য অনেক রসিক লোক হঠাৎ শরীরে একটা আঘাত করাকে পরিহাস জ্ঞান করেন; অনেকে গালিকে ঠাট্টার বরপ ব্যবহার করিয়া থাকেন; বাসরঘরে কণমদন এবং অন্যান্য পীড়ননৈপুণ্যকে বঙ্গসীমন্তিনীগণ একশ্রেণীর হাস্যরস বলিয়া সিথর করিয়াছেন ; হঠাৎ উৎকট বোমার আওয়াজ করা আমাদের দেশে উৎসবের অঙ্গ । ক্ষিতি কহিল, বন্ধগণ, ক্ষান্ত হও। কথাটা একপ্রকার শেষ হইয়াছে। যতটুকু পীড়নে সুখবোধ হয় তাহা তোমরা অতিক্ৰম করিয়াছ, এক্ষণে দুঃখ ক্ৰমে প্রবল হইয়া উঠিতেছে। আমরা বেশ বুঝিয়াছি যে, কমেডির হাস্য ও ট্র্যাজেডির আশ্রজেল দঃখের তারতম্যের উপর নির্ভর করে—