পাতা:সংকলন (১৯২৬) - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৯২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


> げも সংকলন এই-যে রহমবিহারের কথা ভগবান বন্ধ বলিয়াছেন, ইহা মুখের কথা নহে, ইহা অভ্যস্ত নীতিকথা নহে; আমরা জানি, ইহা তাঁহার জীবনের মধ্য হইতে সত্য হইয়া উদ্ভূত হইয়াছে। ইহা লইয়া অদ্য আমরা গৌরব করিব। এই বিশ্বব্যাপী চিরজাগ্রত কর্ণা, এই ব্রহয়বিহার—এই সমস্ত আবশ্যকের অতীত অহেতুক অপরিমেয় মৈত্রীশক্তি মানুষের মধ্যে কেবল কথার কথা হইয়া থাকে নাই, এই শক্তি মনুষ্যত্বের ভাণ্ডারে চিরদিনের মতো সঞ্চিত হইয়া গেল। এই ভারতবর্ষে একদিন মহাসম্রাট অশোক তাঁহার রাজশক্তিকে ধমবিস্তারকাযে, মঙ্গলসাধনকাযে নিয়ন্ত করিয়াছিলেন। রাজশক্তির মাদকতা যে কী সতীব্র, তাহা আমরা সকলেই জানি; সেই শক্তি ক্ষধিত অনির মতো গহ হইতে গহান্তরে, গ্রাম হইতে গ্রামান্তরে, দেশ হইতে দেশান্তরে, আপনার জালাময়ী লোলুপ রসনাকে প্রেরণ করিবার জন্য ব্যগ্র। সেই বিশ্বলব্ধ রাজশক্তিকে মহারাজ অশোক মঙ্গলের দাসত্বে নিযুক্ত করিয়াছিলেন; তৃপ্তিহীন ভোগকে বিসজন দিয়া তিনি শ্রান্তিহীন সেবাকে গ্রহণ করিয়াছিলেন। রাজত্বের পক্ষে ইহা প্রয়োজনীয় ছিল না—ইহা যন্ধেসজা নহে, দেশজয় নহে, বাণিজ্যবিস্তার নহে; ইহা মঙ্গলশক্তির অপর্যাপ্ত প্রাচুর্য, ইহা চক্লবতী রাজাকে আশ্রয় করিয়া তাঁহার সমস্ত রাজাড়ম্বরকে এক মহতে হীনপ্রভ করিয়া দিয়া সমস্ত মনুষ্যত্বকে সমন্জেল করিয়া তুলিয়াছে। কত বড়ো বড়ো রাজার বড়ো বড়ো সাম্রাজ্য বিধস্ত বিসমত ধলিসাৎ হইয়া গিয়াছে—কিন্তু অশোকের মধ্যে এই মঙ্গলশক্তির মহান আবিভাব, ইহা আমাদের গৌরবের ধন হইয়া আজও আমাদের মধ্যে শক্তিসঞ্চার করিতেছে। ঈশ্বরের শক্তিবিকাশকে আমরা প্রভাতের জ্যোতিরন্মেষের মধ্যে দেখিয়াছি, ফালগনের পাপপ্যাপ্তির মধ্যে দেখিয়াছি, মহাসমুদ্রের নাল। gেgর মধ্যে দেখিয়াছি—কিন্তু সমগ্র মানবের মধ্যে যেদিন তাহার বিরাট বিকাশ দেখিতে সমাগত হই সেইদিন আমাদের মহামহোৎসব। হে ঈশ্বর, তুমি আজ আমাদিগকে আহবান করো। বহৎ মনুষ্যত্বের মধ্যে আহন করো। আজ উংসবের দিন শাখা ভারসসভোগের দিন নহে শধেমার মাধ্যয্যের মধ্যে নিমগ্ন হইবার দিন নহে; আজ বহং সম্মিলনের মধ্যে श्रति-प्लेणजथिन्न फ्रिन, श्रतिजरशाश्व्र मिन।) आछ फूभि आभामित्राटक विक्षि জীবনের প্রাত্যহিক জড়ত্ব, প্রাত্যহিক হইতে উদবোধিত করো; প্রতিদিনের নিবীর্ষ নিশ্চেষ্টতা হইতে, আরাম-আবেশ হইতে উদ্ধার করো। যে কঠোরতায়, যে উদ্যমে, যে আত্মবিসর্জনে আমাদের সার্থকতা, তাহার মধ্যে আজ আমাদিগকে প্রতিষ্ঠিত করো। দর করো সমস্ত আবরণ আচ্ছাদন, সমস্ত ।