পাতা:সংকলন (১৯২৬) - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২০০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


છે જે8 সংকলন চিত্তকে জাগরিত করিয়া দেয়। নতুবা সখে আমাদের সখ নাই, ধনে আমাদের মঙ্গল নাই, আলস্যে আমাদের বিশ্রাম নাই। হে ভয়ংকর, হে প্ৰলয়ংকর, হে শংকর, হে ময়কর, হে পিতা, হে বন্ধ, অন্তঃকরণের সমস্ত জাগ্রত শক্তির বারা, উদ্যত চেষ্টার দ্বারা, অপরাজিতচিত্তের দ্বারা, তোমাকে ভয়ে দঃখে মৃত্যুতে সক্ষপণভাবে গ্রহণ করিব—কিছতেই কুষ্ঠিত অভিভূত হইব না—এই ক্ষমতা আমাদের মধ্যে উত্তরোত্তর বিকাশ লাভ করিতে থাকুক; এই আশীবাদ করো। যে ব্যক্তি ও যে জাতি আপন শক্তি ও ধনসম্পদকেই জগতের সবাপেক্ষা শ্রেয় বলিয়া অন্ধ হইয়া উঠিয়াছে, তাহাকে প্রলয়ের মধ্যে যখন একম হতে জাগাইয়া তুলিবে তখন, হে রদ্র, সেই উদ্ধত ঐশ্ববযের বিদীণ প্রাচীর ভেদ করিয়া তোমার যে জ্যোতি বিকীর্ণ হইবে তাহাকে আমরা । যেন সৌভাগ্য বলিয়া জানিতে পারি, এবং যে ব্যক্তি ও যে জাতি আপন শক্তি ও সম্পদকে একেবারেই অবিশ্বাস করিয়া জড়তা দৈন্য ও অপমানের মধ্যে নিজীব অসাড় হইয়া পড়িয়া আছে, তাহাকে যখন দভিক্ষ ও মারী ও প্রবলের অবিচার আঘাতের পর আঘাতে অসিথমজায় কম্পান্বিত করিয়া তুলিবে তখন তোমার সেই দঃসহ দদিনকে আমরা যেন সমস্ত জীবন সমপণ করিয়া সম্মান করি—এবং তোমার সেই ভীষণ আবিভাবের সম্মুখে অবিরাবীমা এধি। রদ্র যত্তে দক্ষিণং মখং তেন মাং পাহি নিতাম। দারিদ্র্য ভিক্ষক না করিয়া যেন আমাদিগকে দগম পথের পথিক করে, এবং দভিক্ষ ও মারী আমাদিগকে মৃত্যুর মধ্যে নিমজিত না করিয়া সচেষ্টতর জীবনের দিকে আকর্ষণ করে। দঃখ আমাদের শক্তির কারণ হউক, শোক আমাদের মন্তির কারণ হউক, এবং লোকভয় রাজভয় ও মৃত্যুভয় আমাদের জয়ের কারণ হউক। বিপদের কঠোর পরীক্ষায় আমাদের মনুষ্যত্বকে সপণ সপ্রমাণ করিলে তবেই, হে রদ্র, তোমার দক্ষিণমখ আমাদিগকে পরিাণ দয়া, কদাচই তাহা করিবে না—কারণ, সেই দয়াই দগতি, সেই দয়াই অবমাননা; এবং হে মহারাজ, সে দয়া, তোমার দয়া নহে। ফালগন ১৩১৪