পাতা:সংকলন (১৯২৬) - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৮৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


S> b’O সংকলন অবশেষে একদিন জবলজটা ভীষণ বৈশাখে উন্মত্ত ধলির ঘণিপাকে সব দাও ফেলে অবহেলে, আত্মবিদ্রোহের অসন্তোষে । তার পরে আরবার বসে বসে নতেন আগ্রহে লেখ নতেন ভাষায় । যুগযুগান্তর চলে যায়। কত শিল্পী, কত কবি তোমার সে লিপির লিখনে বসে গেছে একমনে । শিখিতে চাহিছে তব ভাষা, বুঝিতে চাহিছে তব অন্তরের আশা। তোমার মনের কথা আমারি মনের কথা টানে, চাও মোর পানে । চকিত ইঙ্গিত তব, বসনপ্রান্তের ভঙ্গীখানি অঙ্কিত করকে মোর বাণী । শরতে দিগন্ততলে ছলছলে তোমার যে অশ্রর আভাস, আমার সংগীতে তারি পড়কে নিশবাস। অকারণ চাণগুল্যের দোলা লেগে ক্ষণে ক্ষণে ওঠে জেগে কটিতটে যে কলকিঙ্কিণী, মোর ছন্দে দাও ঢেলে তারি রিনিরিনি, ওগো বিরহিণী । দর হতে আলোকের বরমাল্য এসে খসিয়া পড়িল তব কেশে, সপশে তারি কভু হাসি কভু আশ্রজেলে উৎকণ্ঠিত আকাঙক্ষায় বক্ষতলে ওঠে যে ক্ৰন্দন, মোর ছন্দে চিরদিন দোলে যেন তাহারি পন্দন ।