পাতা:সংকলন (১৯২৬) - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৫৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8し介 সংকলন যাইত না । ইহা হইতে পষ্ট বুঝা যাইবে, ভিন্ন ভিন্ন সভ্যতার প্রাণশক্তি ভিন্ন ভিন্ন পথানে প্রতিষ্ঠিত। সাধারণের কল্যাণভার যেখানেই পঞ্জিত হয় সেইখানেই দেশের মর্মস্থান। সেইখানে আঘাত করিলে সমস্ত দেশ সাংঘাতিকরপে আহত হয়। বিলাতে রাজশক্তি যদি বিপর্যসত হয় তবে সমস্ত দেশের বিনাশ উপস্থিত হয়। এইজন্যই য়রোপে পলিটিকস এত অধিক গরতের ব্যাপার। আমাদের দেশে সমাজ যদি পঙ্গ হয় তবেই যথার্থভাবে দেশের সংকটাবস্থা উপস্থিত হয়। এইজন্য আমরা এতকাল রাষ্ট্ৰীয় স্বাধীনতার জন্য প্রাণপণ করি নাই, কিন্তু সামাজিক স্বাধীনতা সবাতোভাবে বাঁচাইয়া আসিয়াছি। নিঃসবকে ভিক্ষাদান হইতে সাধারণকে ধমশিক্ষাদান, এ-সমস্ত বিষয়েই বিলাতে স্টেটের উপর নিভীর, আমাদের দেশে ইহা জনসাধারণের ধমাব্যবসথার উপরে প্রতিষ্ঠিত—এইজন্য ইংরেজ স্টেটকে বাঁচাইলেই বাঁচে, আমরা ধম ব্যবসথাকে বচিাইলেই বাঁচিয়া যাই। ইংলন্ডে সবভাবতই স্টেটকে জাগ্রত রাখিতে সচেস্ট রাখিতে জনসাধারণ সবদাই নিযুক্ত। সম্প্রতি আমরা ইংরেজের পাঠশালায় পড়িয়া সিথর করিয়াছি, অবস্থানিবিচারে গবমেণ্টকে খোঁচা মারিয়া মনোযোগী করাই জনসাধারণের সব প্রধান কতব্য। ইহা বুঝিলাম না যে, পরের শরীরে নিয়তই বেলেসা লাগাইতে থাকিলে নিজের ব্যাধির চিকিৎসা করা হয় না। আমরা তক করিতে ভালোবাসি, অতএব এ তক এখানে ওঠা অসম্ভব নহে যে, সাধারণের কমভার সাধারণের সবাঙ্গেই সঞ্চারিত হইয়া থাকা ভালো, না তাহা বিশেষভাবে সরকার-নামক একটা জায়গায় নিদিষ্ট হওয়া ভালো। আমার বক্তব্য এই যে, এ তক বিদ্যালয়ের ডিবেটিং ক্লাবে করা যাইতে পারে, কিন্তু আপাতত এ তক আমাদের কোনো কাজে লাগিবে না। কারণ, এ কথা আমাদিগকে বুঝিতেই হইবে, বিলাতরাজ্যের স্টেট সমস্ত সমাজের সম্মতির উপরে অবিচ্ছিন্নরপে প্রতিষ্ঠিত—তাহা সেখানকার স্বাভাবিক নিয়মেই অভিব্যক্ত হইয়া উঠিয়াছে। শশধমাত্র তকের বারা আমরা তাহা লাভ করিতে পারিব না, অত্যন্ত ভালো হইলেও তাহা আমাদের অনধিগম্য। আমাদের দেশে সরকারবাহাদর সমাজের কেহই নন, সরকার সমাজের বাহিরে। অতএব যে-কোনো বিষয় তাঁহার কাছ হইতে প্রত্যাশা করিব, তাহা স্বাধীনতার মল্যে দিয়া লাভ করিতে হইবে। যে কম সমাজ সরকারের বারা করাইয়া লইবে সেই কম সম্বন্ধে সমাজ নিজেকে অকমণ্য করিয়া তুলিবে। অথচ এই অকমণ্যতা আমাদের দেশের স্বভাবসিন্ধ ছিল না। আমরা নানা