পাতা:সংকলন (১৯২৬) - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পাব ও পশ্চিম ভারতবর্ষের ইতিহাস কাহাদের ইতিহাস। একদিন যে শেবতকায় আর্যগণ প্রকৃতির এবং মানষের সমস্ত দরহে বাধা ভেদ করিয়া ভারতবর্ষে প্রবেশ করিয়াছিলেন, যে অন্ধকারময় সবিস্তীণ অরণ্য এই বহং দেশকে আচ্ছন্ন করিয়া পাবে পশ্চিমে প্রসারিত ছিল তাহাকে একটা নিবিড় যবনিকার মতো সরাইয়া দিয়া ফলশস্যে বিচিত্র, আলোকময়, উন্মুক্ত রংগভূমি উদঘাটিত করিয়া দিলেন, তাঁহাদের বন্ধি শক্তি ও সাধনা একদিন এই ইতিহাসের ভিত্তিরচনা করিয়াছিল। কিন্তু এ কথা তাঁহারা বলিতে পারেন নাই যে, ভারতবষ আমাদেরই ভারতবষ । আযরা অনাযীদের সঙ্গে মিশিয়া গিয়াছিলেন। প্রথম যুগে আযদের ক্ষমতা যখন অক্ষণ ছিল তখনো অনার্য শদ্রেদের সহিত তাঁহাদের প্রতিলোম বিবাহ চলিয়াছে। তার পরে বৌদ্ধযাগে এই মিশ্রণ আরো অবাধ হইয়া উঠিয়াছিল। এই যুগের অবসানে যখন হিন্দুসমাজ আপনার বেড়াগুলির পনঃসংস্কার করিতে প্রবত্ত হইল এবং খুব শক্ত পাথর দিয়া আপন প্রাচীর পাকা করিয়া গাঁথিতে চাহিল, তখন দেশের অনেক পথলে এমন অবস্থা ঘটিয়াছিল যে ক্লিয়াকম পালন করিবার জন্য বিশুদ্ধ ব্লাহরণ খুজিয়া পাওয়া কঠিন হইয়াছিল; অনেক পথলে ভিন্ন দেশ হইতে ব্রাহরণ আমন্ত্ৰণ করিয়া আনিতে হইয়াছে এবং অনেক পথলে রাজাজ্ঞায় উপবীত পরাইয়া ব্লাহরণ রচনা করিতে হইল, এ কথা প্রসিদ্ধ। বণের যে শত্রতা লইয়া একদিন আযরা গৌরববোধ করিয়াছিলেন সে শত্রতা মলিন হইয়াছে; এবং আর্যগণ শদ্রেদের সহিত মিশ্রিত হইয়া, তাহাদের বিবিধ আচার ও ধর্ম দেবতা ও পাজাপ্রণালী গ্রহণ করিয়া, তাহাদিগকে সমাজের অন্তগত করিয়া লইয়া, হিন্দসমাজ বলিয়া এক সমাজ রচিত হইয়াছে; বৈদিকসমাজের সহিত কেবল যে তাহার ঐক্য নাই তাহা নহে, অনেক বিরোধও আছে। অতীতের সেই পবেই কি ভারতবর্ষের ইতিহাস দাঁড়ি টানিতে পারিয়াছে। বিধাতা কি তাহাকে এ কথা বলিতে দিয়াছেন যে, ভারতবর্ষের ইতিহাস হিন্দরে ইতিহাস। হিন্দর ভারতবর্ষে যখন রাজপত রাজারা পরপর মারামারি কাটাকাটি করিয়া বীরত্বের আত্মঘাতী অভিমান প্রচার করিতেছিলেন, সেই সময়ে ভারতবর্ষের সেই বিচ্ছিন্নতার ফাঁক দিয়া মসলমান এ দেশে প্রবেশ করিল, চারি দিকে ছড়াইয়া পড়িল এবং পরষানক্রমে জমিয়া ও মরিয়া এ দেশের মাটিকে আপন করিয়া লইল ।