পাতা:সংবাদপত্রে সেকালের কথা প্রথম খণ্ড.djvu/১৮৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


s?ం গুনওখাদে পত্রে সেনকালের কথা

  1. . ( ১২ অক্টোবর ১৮২২ । ২৭ আশ্বিন ১২২৯ )

সভা ॥—আইলগু দেশে অতিশয় দুর্ভিক্ষ হইয়াছে অতএব ভদ্দেশের উপকারার্থে ২ আকৃটোবর বৃহস্পতিবার শহর কলিকাতার টেনহালে অর্থাৎ সাধারণ ঘরে এক সভা হইয়াছিল এবং অনেক দয়াশীল সাহেব লোকেরা ঐ বিষয়ের কৰ্ম্মসম্পাদক হইয়া নিযুক্ত হইয়াছেন ও বাঙ্গালি ভাগ্যবান লোকের অর্থাৎ শ্ৰীযুত বাৰু গোপীমোহন দেব ও শ্ৰীযুত মহারাজ রাজকৃষ্ণ বাহাদুর ও শ্ৰীযুত বাবু রামগোপাল মল্লিক ও শ্ৰীযুত বাবু রামরত্ব মল্লিক ও শ্ৰীযুত বাৰু বৈষ্ণবদাস মল্লিক ও শ্ৰীযুত বাবু রামদুলাল দে ও ঐযুত বাবু, হরিমোহন ঠাকুর ও শ্ৰীযুত মহারাজ রামচন্দ্র রায় ও শ্ৰীযুত বাবু লাড়লিমোহন ঠাকুর ও শ্ৰীযুত বাবু কাশীনাথ মল্লিক ও শ্রযুত বাবু রূপলাল মল্লিক ও শ্ৰীযুত বাবু রূপচাদ রায় ও শ্রযুত বাবু রঘুরাম গোস্বামী ও শ্রযুত বাবু রাজনারায়ণ সেন ও ঐযুত বাবু রসময় দত্ত ও শ্ৰীযুত বাবু গুরুপ্রসাদ বস্থ ও শ্রযুত বাবু কাশীনাথ ঘোষাল প্রভৃতির কৰ্ম্মসম্পাদকরূপে নিযুক্ত হইয়াছেন ও কমবেশ চল্লিশ হাজার তিন শত পয়ষট্টি টাকার চাদ হইয়াছে। ( ১ ৪ ফেব্রুয়ারি ১৮২৪ । ৩ ফাল্গুন ১২৩০ ) সভা —মান্দরাজ রাজধানীর লোকেরদের দুর্ভিক্ষ জন্য দুঃখ দূর করিবার উপায় করণার্থে ৮ ফেব্রুআরি রবিবার শহর কলিকাতায় শ্ৰীযুত বাবু কাওয়ালি বাহকাতার রামস্বামির ঘরে এক সভা’হইয়াছিল তাহাতে কলিকাতানিবাসি অনেক ২ ভাগ্যবান বাঙ্গালি লোকেরা ছিলেন। ঐ সভাতে এই স্থির হইল যে এক চান্দা করিয়া সকল লোকের স্থানে কিছু২ লইয়া তণ্ডুলাদি এখানহইতে ক্রয় করিয়া সেখানে প্রেরণ করা যাউক । তাহাতে শ্রযুত বাবু রামস্বামী কৰ্ম্মকারী হইয়াছেন এবং শ্ৰীযুত পামর কোম্পানি খাজাঞ্চি হইয়াছেন। ( ৩ সেপ্টেম্বর ১৮২৫ । ২০ ভাদ্র ১২৩২ ) সৎপরামর্শ।—এই কলিকাতা মহারাজধানীতে অনেক ধনি গুণি কারুণিক অবিরত পরহিতে রত বিশিষ্ট শিষ্ট মহাশয়েরা আছেন এবং তাহারা সৰ্ব্বদা স্ব২ কীৰ্ত্তি রক্ষার্থে যথোচিত ব্যয় করিয়া থাকেন কিন্তু কোথায় কি করিলে কত উপকার তদ্বিষয়ে বড় একটা মনোযোগ করেন না। এই কলিকাতা নগরে স্বদেশীয় ও বিদেশীয় অনেক লোক আছে এবং তাহারদের মধ্যে অধিক হিন্দু এবং তাহারা মৃত্যুকালে প্রায় সকলে গঙ্গাতীরে যায় কিন্তু সেখানে গিয়া মুখে থাকিতে পারে না যেহেতুক গঙ্গাতীরে অধিক স্থান নাই এবং অনেক লোক এক কালে গঙ্গাতীরে গেলে রাত্রিকালে ঘরও পাইতে পারে না ইহাতে পীড়িত লোকেরদের যে প্রকার ক্লেশ তাহ সকলেই বোধ করিতে পারেন। এমত মহানগরীতে এত ভাগ্যবান লোক থাকিতে ষে ইহার উপায় না হয় এ বড় খেদের বিষয় অতএব আমারদের পরামর্শ এই যে যদি কোন ভাগ্যবান লোক দয়াপ্রকাশপূৰ্ব্বক গঙ্গাতীরে চল্লিশ বিস্ব পঞ্চাশটা ক্ষুদ্র ২ পাকা কুঠরী প্রস্তুত করিয়া দেন তবে পীড়িত লোকেরা গঙ্গাতীরে গিয়া মুখে থাকিতে পারে এবং হইতে পারে যে সেখানে থাকিয়া শুশ্রুষা করিলে অনেকে