পাতা:সংবাদপত্রে সেকালের কথা প্রথম খণ্ড.djvu/২৬২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ミミ8 মংবাদ পত্রে সেনকালেৰ কথা বত্রিশ তোপ হইল এবং মাস্তলের নিশান অৰ্দ্ধ মাস্তুলপৰ্য্যন্ত সকল দিন টানান ছিল। পরে মসজিদহইতে সিন্ধুক সমেত পূনৰ্ব্বার চসরুর বাগানে লইল তাহার অগ্রে সৈন্য চলিল ও শোক চিহ্ন বাদ্য চলিল পশ্চাৎ সাহেব লোকেরা ও ওমর লোকেরা চলিলেন সেই বাগানে গিয়া তাহাকে কবর দিল । মোকাম কলিকাতাতেও শ্ৰীশ্ৰীযুত বড় সাহেব হুকুম দিয়াছেন যে বাদশাহজাদার সৎভমার্থে গড়ে বত্রিশ তোপ হইবে ও অৰ্দ্ধ মাস্তুলপৰ্য্যন্ত নিশান উঠান যাইবেক । ( ১৮ আগষ্ট ১৮২১ । ৪ ভান্দ্র ১২২৮ ) মুরশেদাবাদ ॥—সুবে বাঙ্গালী ও স্থবে বেহার ও স্থবে উড়িস্যার স্কুবেদার মুরশেদাবাদের নবাব স্বজাউলমুলুক মুবারকদৌল আলীজাহ, জিনতদীন আলীর্থ। বাহাদুর ফরোজ জঙ্গ, ৬ আগস্ত অর্থাৎ ২৩ শ্রাবণ সোমবারে পরলোকপ্রাপ্ত হইয়াছেন তৎপর দিন ৭ তারিথে অতিপ্রাতঃকালে মোং বহরমপুরহইতে গোরা পলটন ও সিফাহী পল্টন দুই তোপ লইয়া নবাব বাটীর চকে উপস্থিত হইল পরে নবাব সাহেবের অমাত্যেরা ও আত্মীয় লোকেরা ঐ মৃত শরীর ধৌত করিয়া সবুজবর্ণ বস্ত্রে মণ্ডিত অপূৰ্ব্ব পালঙ্গোপরি তাহাকে উঠাইয়া কবর স্থানে লইয়া চলিল। তাহার অগ্রে২ ঐ সকল সৈন্য বন্দুক উলটাইয়া চলিতে লাগিল এবং বাদ্য যন্ত্র সকল কৃষ্ণ বর্ণ বস্ত্রাচ্ছাদিত করিয়া শোকসুচক বাদ্য করিতে২ চলিল । এবং তাহার পশ্চাদ্ভাগে সরকারী হাতী ও ঘোড়া ও সৈন্য চলিল এবং শ্ৰীশ্ৰীযুত বড় সাহেবের উকীল ও তত্রস্থ সকল সাহেবের সঙ্গে চলিলেন মুরশেদাবাদহইতে এক ক্রোশ নাজীমেরদের কবরস্থান জাফরগঞ্জপৰ্য্যস্ত সকল সমেত গেলেন সেখানে পহুছিয়া সিফাহীরা তিনবার বন্দুক ছাড়িল ও র্তাহার বয়ঃক্রম বৎসরানুসারে ২৯ তোপ হইল পরে তাহারদের বংশমর্য্যাদানুসারে তাহাকে সেইখানে কবর দিয়া সকলে স্ব২ স্থানে গমন করিলেন । ( ২৫ ডিসেম্বর ১৮২৪ । ১২ পৌষ ১২৩১ ) মুরশেদাবাদের নবাব শ্ৰীশ্ৰীযুত মবারক আলী খা যে স্থবে বাঙ্গলা ও বেহার ও উড়িস্তার সুবেদারি পদপ্রাপ্ত হইয়াছেন তজ্জন্তে ২৩ দিসেম্বর তারিখে শ্ৰীশ্ৰীযুতের আজ্ঞানুসারে শহর কলিকাতার গড়ে উনিশ তোপ হইয়াছে । ( ৮ সেপ্টেম্বর ১৮২১ । ২৫ ভাত্র ১২২৮ ) মোকাম কলিকাতার বড়বাজারের বাবু নীলমণি মল্লিক অতিভাগ্যবান লোক ছিলেন তিনি সম্পূর্ণ ধন রাখিয়া এই সপ্তাহে নিধনপ্রাপ্ত হইয়াছেন। তাহার ঔরসপুত্র ছিল না এক পোষ্যপুত্র রাথিয়াছিলেন সেই তাহার তাবৎ ধনাধিকারী হইয়াছে।