পাতা:সংবাদপত্রে সেকালের কথা প্রথম খণ্ড.djvu/৩৭০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


^&*9s মংখাদ পত্রে মোকালেৰ কথা অতএব এই নরদামা বন্দ করিবার অগ্রে ঐ সাহেব লোকেরদের এই বিবেচনা করা অতিকর্তব্য যেহেতুক এমন প্রাচীন প্রজারদিগকে তাড়িয়া দেওয়া অকৰ্ত্তব্য । এক রসিক লোক কৌতুক করিয়া এই রূপ দরখাস্ত শ্ৰীশ্ৰীযুতের নিকটে সত্য দিয়াছে। ( ৫ আগষ্ট ১৮২• । ২২ শ্রাবণ ১২২৭ ) কলিকাতার নূতন রাস্থ –মোং কলিকাতাতে ধৰ্ম্মতলাহইতে বস্থবাজারে শীঘ্র গমনাগমনের কারণ নূতন রাস্থা হইতেছে এই রাস্থা হইলে যেমন লোকেরদের উপকার হইবেক তেমন অন্ত রাস্থাতে উপকার হয় না যেহেতুক পূৰ্ব্বে ধৰ্ম্মতলাহইতে বহুবাজার পর্যন্ত গাড়ীপ্রভৃতি গমনাগমন করিবার নিকট প্রশস্ত রাস্থা ছিল না পূৰ্ব্বে আসিতে হইলে ঘুরিয়া আসিতে হইত। এবং তাহাতে আরো উপকার এই যে সে রাস্থার মধ্যে লালদিবীর মত এক, উত্তম পুষ্করিণী কাটা যাইতেছে এবং তাহার চতুদিকে রাস্থা হইবেক শ্ৰীশ্ৰীযুতের নামানুসারে ঐ' রাস্থার নাম হেষ্টিংস রাস্থা খ্যাত হইবেক । অপর আরো শুনিতে পাই যে মোং চৌরঙ্গিতে এই মত পুষ্করিণী ও তাহার চতুদিকে উৎকৃষ্ট রাস্থা করা যাইবেক । ( ২ ডিসেম্বর ১৮২৪ । ১৮ অগ্রহায়ণ ১২২৭ ) কলিকাতা –মোকাম কলিকাতার ধৰ্ম্মতলা অবধি বাগবাজারপধ্যস্ত যে রাস্থা ও পুষ্করিণী হইতেছিল তাহা অল্প দিনের মধ্যে সমাপ্ত হইবেক । এবং আরও শুনা যাইতেছে ষে কসাই টোলার মাঝখান অবধি বৈঠকখানাপর্ষ্যস্ত এক বড় রাস্থা হইবেক । - { ৩ মার্চ ১৮২১ । ২১ ফাল্গুন ১২২৭ ) নূতন রাস্থ –মোং কলিকাতার গঙ্গরধারে প্রবল রাস্থা নাই এইক্ষণে শুনা যাইতেছে শ্ৰীশ্ৰীযুত কোম্পানী বাহাদুর সেই রাস্থা করিতে হুকুম দিয়াছেন । এই রাস্থা হইলে শহরের শোভা উত্তম হইবেক । কিন্তু সেখানকার যে ভাগ্যবান লোকেরদিগের জর্মী ও বাটী গঙ্গারধারে আছে তাহারদিগের অনেক অপচয় হইতে পারে এবং বাহির রাস্থা ও বড় রাস্থার মধ্যে যে রাস্থা আরম্ভ হইয়া বহুবাজার পর্য্যস্ত আসিয়াছিল সে রাস্থা এইক্ষণে মহকুপ হইয়াছে। ( ১৫ ফেব্রুয়ারি ১৮২৩ ৫ ফাঙ্কন ১২২ন ) নূতন রাস্থ –গত শুক্রবারে কলিকাতার জরনেলেতে এক পত্র ছাপা হইয়াছে যে এমত পরামর্শ হইতেছে যে খিদিরপুরে জাহাজের য়াডি অবধি গঙ্গাতীরে গাডিনরিচ পৰ্য্যভ এক নূতন রাস্থ হইবে এবং টালির খালের উপরে:এক নূতন সাকো হইবে এই রাস্থ প্রভত হইলে কলিকাতা অবধি গাডিনরিচপৰ্য্যন্ত সাবেক রাস্থা দিয়া যত দূর হয় এই নুতন রাস্থা হইলে