পাতা:সংস্কৃত সাহিত্যের কথা - নিত্যানন্দ বিনোদ গোস্বামী.pdf/২২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

>や ংস্কৃত সাহিত্যের কথা বিশেষত পুরাণপাঠকদের একটা মোট আয়ও বাধা ধরা হয়ে গেল। বর্তমান কালেও পুরাণের ওপর ভারতবাসী হিন্দুর টানই বেশি। শেষে এই পুরাণ সমস্ত ধর্মশাস্ত্রের ওপরেও প্রভাব বিস্তার করে। বর্তমান স্মৃতি নিবন্ধগুলিতে গৃহ্যস্বত্র, ধর্মসূত্র, ও সংহিতার বচন আর পুরাণের বচনের মধ্যে সংখ্যার তুলনা করলেই তা ধরা পড়ে । যাই হোক সমস্ত পুরাণগুলির বিষয়ৰস্তু দেখলে অবাক হয়ে যেতে হয়। অষ্টাদশ মহাপুরাণ– ব্রহ্ম, পদ্ম, বিষ্ণু, শিব, ভাগবত, নারদ, মার্কণ্ডেয়, অগ্নি, ভবিষ্ক ব্রহ্মবৈবর্ত, লিঙ্গ, বরাহ স্কন্ধ, বামন, কূৰ্ম মৎস্ত গরুড় ব্রহ্মাও । এই মহাপুরাণ ছাড়া অনেকগুলি উপপুরাণ আছে। ধর্মশাস্ত্র, অথশাস্ত্র ও কামশাস্ত্র "ধর্মশাস্ত্রের উৎপত্তিস্থল বৈদিক কল্পস্বত্র। এই ধর্মশাস্ত্র স্মৃতিশাস্ত্র নামে খ্যাত। এগুলি পৌরাণিক যুগে অর্থাৎ খ্রীস্টপূর্বাবে রচিত। এগুলিও সংহিতা নামে প্রসিদ্ধ। মনুসংহিতাই সর্বপ্রধান, তারপর যাজ্ঞবল্ক্যসংহিতার স্থান। কুড়িখানা সংহিতা নিয়ে স্মৃতিশাস্ত্র । এগুলিকে প্রাচীনস্থতি বলে । নব্যস্মৃতির কথা নিবন্ধ অধ্যায়ে বলা যাবে। বৃহস্পতি শুক্রাচার্ধ প্রভৃতি অর্থশাস্ত্রের কত । রাজ্য বাণিজ্য প্রভৃতি পরিচালনা করতে হোলে অর্থশাস্ত্রের দরকার। চাণক্য বা কৌটিল্য লিখিত অর্থশাস্ত্রই প্রসিদ্ধি লাভ করেছে। ছোটো ছোটো অর্থশাস্ত্র অনেক লেখা হয় তার অনেকগুলি লুপ্ত। কৌটিল্যের অর্থশাস্ত্র পড়লে দেখা যায় সেকালে রাজকর্মচারী নিয়োগ, নানা বস্তুর ওপর কর নিধারণ প্রভৃতি বিশেষ বিধিবদ্ধ ও স্বনিয়ন্ত্রিত ছিল । l কামশাস্ত্রের বা প্রাচীন বই মেলে তা বাৎস্তায়নকৃত কামস্বত্র। এর টীকা বৌদ্ধপণ্ডিত শোধর কৃত। এতে গার্হস্থ্য স্থখভোগ পারিবারিক নিয়মকান্থন আলোচিত । বাৎস্তায়ন তার বইয়ে অনেক প্রাচীন কামশাস্ত্রকারদের নাম