পাতা:সংস্কৃত সাহিত্যের কথা - নিত্যানন্দ বিনোদ গোস্বামী.pdf/৪০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

e8 ংস্কৃত সাহিত্যের কথা অন্যান্ত বিষয়েও এই রকম উপমা বা তুলনা আছে। এর প্রভাৰ বৰ্তমান ৰাংলাসাহিত্যেও কম নয়। কোনো স্থলে ভিন্নার্থক শব্দকে একার্থক বলে ধরে নেওয়া হয়েছে যেমন মীনকেতন মকরকেতন শশাংক হরিণাংক । এসবস্থলে মীন মকর শশ হরিণ এক নয়। তেমনি নীল কৃষ্ণ পাগুর শ্বেত পাণ্ডু প্রভৃতি রং পরম্পর মেশামেশি অর্থে ব্যবহৃত হয়েছে। কতগুলি বিষয়ে আবার কবিরা স্বাধীন নন যেমন শশাংক স্বলে শশী চলবে কিন্তু মৃগাংকের স্থলে মৃগী চলবে না। এই রকম অনেক খুঁটিনাটি বিষয় আছে, যা সাহিত্য পড়তে পড়তেই জানা যায়। শেষকথা যেমন বিশাল কোনো স্থানকে দূর থেকে দেখলে তার একটি অখণ্ড ও আবছা দৃগু চোখে পড়ে, বিশাল সংস্কৃত সাহিত্যকে এই প্রবন্ধে দূর থেকেই তেমনি দেখা গেল। কেননা সমস্ত খুটিয়ে ও নিঃশেষে নাম নিয়ে সংস্কৃত সাহিত্যের কথা বলা অসম্ভব। এই বইয়ে ‘সাহিত্য’ শব্দের বুৎপত্তি লভ্য অর্থ ধরা হয়েছে— অর্থাৎ সংস্কৃতভাষার যে যে বিষয়ের সহিত সম্বন্ধ আছে তাই সংস্কৃত সাহিত্য (সহিত +গ্য )। যে কয়েকটি বিষয়ের ওপর লক্ষ্য রাখা উচিত, সে সম্বন্ধে কিছু বলে আমাদের বক্তব্য শেষ করব । Dead language ofbi fatwo winnif I am utta Rostol I এই বিশেষণটি সংস্কৃতভাষার ঘাড়ে চাপানো হয়েছে। এখন মৃতভাষা বলতে স্বছি অপ্রচলিত অর্থাৎ যা আটপৌরে কথাবার্তায় চলে না তাকেই বোঝায়, তবে /তো বাংলা সাধুভাষাও মৃতভাষা। যাতে বই পত্র আর এখন লেখে না তাই যদি মৃতভাষা হয়, তবে ভারতবর্ষের নানা প্রাস্ত থেকে বছর বছর নতুন সংস্কৃত ৰই, সাপ্তাহিক মাসিক বাৎসরিক প্রভৃতি পত্রিকাদি অনেক বেরুচ্ছে, যিনি এ দিকের খবর রাখেন তিনি জানেন। সংস্কৃত শেখার বিদ্যালয় সারাভারতে