পাতা:সাহিত্যের পথে - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১১০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Σ Σ ο সাহিত্যের পথে ভিতরে পালিশ-করা কাচের পিছনে লম্বা সার করে ঝুলছে লাল চটিwoof; Ital like stalactites of blood, flooding the eyes of passers-by with dripping color, jamming their crimson reflections against the windows of cabs and tramcars, screaming their claret and salmon into the teeth of the sleet, plopping their little round maroon lights upon the tops of umbrellas. The row of white, sparkling shop fronts is gashed and bleeding, it bleeds red slippers সমস্তটা এই চটিজুতো নিযে। একেই বলা যায নৈর্ব্যক্তিক, impersonal । ঐ চটিজুতোর মালার উপর বিশেষ আসক্তির কোনো কারণ নেই, না খরিদদার না দোকানদার ভাবে। কিন্তু দাড়িযে দেখতে হল, সমস্ত ছবির একটা আত্মতা যেই ফুটে উঠল অমনি তার তুচ্ছতা আর রইল না। যারা মানে-কুড়ানিযা তারা জিজ্ঞাসা করবে, ‘মানে কী হল মশায । চটিজুতো নিযে এত হল্লা কিসের, নাহ্য হলই বা তার রঙ লাল ? উত্তরে বলতে হয, ‘চেযেই দেখে-না’। ‘দেখে লাভ কী।’ তার কোনো জবাব নাই । নন্দনতত্ত্ব (aesthetics ) সম্বন্ধে এজরা পৌণ্ডের একটি কবিতা আছে। বিষযটি এই যে, একটি মেযে চলেছিল রাস্তা দিযে ; একটা ছোটো ছেলে, তালি দেওযা কাপড় পরা, তার মন উঠল জেগে ; সে থাকতে পারল না, বলে উঠল, “দেখ, চেযে রে, কী সুন্দর।” এই ঘটনার তিন বৎসর পরে ঐ ছেলেটারই সঙ্গে আবার দেখা । সে বছর জালে সার্ডিন মাছ পড়েছিল বিস্তর। বড়ে বড়ো কাঠের বাক্সে ওর দাদাখুডোরা মাছ সাজাচ্ছিল, ব্রেসচিযার হাটে বিক্রি করতে পাঠাবে। ছেলেটা মাছ ঘাটাঘাটি করে লাফালাফি করতে লাগল। বুড়োর ধমক দিযে বললে, “স্থির হযে বোস। তখন সে সেই সাজানো মাছগুলোর