পাতা:সাহিত্যের পথে - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১১৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Yo সাহিত্যের পথে দেখাতেই খাটি আনন। আধুনিক বিজ্ঞান যে নিরাসক্ত চিত্তে বাস্তবকে বিশ্লেষণ করে আধুনিক কাব্য সেই নিরাসক্ত চিত্তে বিশ্বকে সমগ্রভৃষ্টিতে দেখবে, এইটেই শাশ্বতভাবে আধুনিক। কিন্তু একে আধুনিক বলা নিতান্ত বাজে কথা। এই-যে নিরাসক্ত সহজ বৃষ্টির আনন্দ এ কোনো বিশেষ কালের নয। যার চোখ এই অনাবৃত জগতে সঞ্চরণ করতে জানে এ তারই। চীনের কবি লি-পো যখন কবিতা লিখছিলেন সে তো হাজার বছরের বেশি হল । তিনি ছিলেন আধুনিক, তার ছিল বিশ্বকে সদ্য-দেখা চোখ। চারটি লাইনে সাদা ভাষায় তিনি লিখছেন— এই সবুজ পাহাড়গুলোর মধ্যে থাকি কেন। প্রশ্ন গুনে হাসি পায, জবাব দিই নে। আমার মন নিস্তব্ধ । যে আর-এক আকাশে আর-এক পৃথিবীতে বাস করি— সে জগৎ কোনো মানুষের না । পীচ গাছে ফুল ধরে, জলের স্রোত যায বযে । আর-একটা ছবি— নীল জল • • • নির্মল চাদ, চাদের আলোতে সাদা সারস উড়ে চলেছে। ঐ শোনে, পানফল জড়ো করতে মেযের এসেছিল— তারা বাড়ি ফিরছে রাত্রে গান গাইতে গাইতে । আর-একটা— নরদেহে গুযে আছি বসন্তে সবুজ বনে। এতই আলস্ত যে সাদা পালকের পাখাটা নড়াতে গা লাগছে না । টুপিটা রেখে দিযেছি ঐ পাহাড়ের আগাষ, পাইনগাছের ভিতর দিয়ে হাওয়া আসছে আমার খালি মাথার পরে ।