পাতা:সাহিত্যের পথে - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১২০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


33.6 সাহিত্যের পথে স্বাভাবিক রুচি তারা যাবে কোথায়। কোনো কোনো গাছে ফুলে পাতায় কেবলই পোকা ধরে, আবার অনেক গাছে ধরে না— প্রথমটাকেই প্রাধান্য দেওয়াকেই কি বাস্তব সাধনা ব’লে বাহাদুরি করতে হবে। একজন কবি একটি সন্ত্রাস্ত ভদ্রলোকের বর্ণনা করছেন— রিচার্ড কোডি যখন শহরে যেতেন পায়ে-চলা পথের মানুষ আমরা তাকিয়ে থাকতুম ভার দিকে। ভদ্র যাকে বলে, মাথা থেকে পা পর্যন্ত । ছিপছিপে, যেন রাজপুত্র। সাদাসিধে চালচলন, সাদাসিধে বেশভূষা— কিন্তু যখন বলতেন ‘গুড মর্নিং’ আমাদের নাড়ী উঠত চঞ্চল হয়ে । চলতেন যখন ঝলমল করত । ধনী ছিলেন অসম্ভব । ব্যবহারে প্রসাদগুণ ছিল চমৎকার । যা-কিছু এর চোখে পড়ত, মনে হত, আহা, আমি যদি হতুম ইনি। এ দিকে আমরা যখন মরছি খেটে খেটে, তাকিয়ে আছি কখন জলবে আলো, ভোজনের পালায় মাংস জোটে না, গাল পাড়ছি মোট রুটিকে— এমনসময় একদিন শাস্ত বসন্তের রাত্রে রিচার্ড কোডি গেলেন বাড়িতে, মাথার মধ্যে চালিয়ে দিলেন এক গুলি ॥৯ ১ মূল কবিতাটি হাতের কাছে না থাকাতে স্মরণ করে তর্জমা করতে হল, কিছু ক্রটি ঘটতে পারে ।