পাতা:সাহিত্যের পথে - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/১৬২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8७२ সাহিত্যের পথে গৌরবে দেখি, তা হলে এও জাযগা নেবে ভাবের নিত্যজগতে। বস্তুত আর্টিস্টরা বিশেষ আনন্দ পায় এইরকম স্বষ্টিতেই। যা সহজেই সাধারণের চোখ ভোলায তাতে তার নিজের স্বষ্টির গৌরব জোর পায় না। যা আপনিই ডাক দেয় না তার মুখে সে আমন্ত্রণ জাগিযে তোলে ; বিধাতার হাতের পাসপোর্ট নেই যার কাছে তাকে সে উত্তীর্ণ ক’রে দেয় মনোলোকে। অনেক সময বড়ো আর্টিস্ট অবজ্ঞা করে সহজ মনোহরকে আপন স্বষ্টিতে ব্যবহার করতে। মানুষ বস্তুজগতের উপর আপন বুদ্ধিকৌশল বিস্তার করে নিজের জীবনযাত্রার একান্ত অনুগত একটি ব্যাবহারিক জগৎ সর্বদাই তৈরি করতে লেগেছে। তেমনি মানুষ আপন ইন্দ্ৰিয়বোধের জগৎকে পরিব্যাপ্ত করে বিচিত্র কলাকৌশলে আপন ভাবরসভোগের জগৎ স্বষ্টি করতে প্রবৃত্ত। সেই তার সাহিত্য । ব্যাবহারিক বুদ্ধিনৈপুণ্যে মানুষ কলে বলে কৌশলে বিশ্বকে আপন হাতে পায়, আর কলানৈপুণ্যে কল্পনাশক্তিতে বিশ্বকে সে আপন কাছে পায়। প্রযোজনসাধনে এর মূল্য নয, এর মূল্য আত্নীযতাসাধনে, সাহিত্যসাধনে । একবার সেকালের দিকে তাকিযে দেখা যাক। সাহিত্যসাধনা সম্বন্ধে তখনকার দিনের মনোভাবের পরিচয আছে একটি কাহিনীতে, সেটা আলোচনার যোগ্য। ক্ৰৌঞ্চমিথুনের মধ্যে একটিকে ব্যাধ যখন হত্য করলে তখন ঘৃণার আবেগে কবির কণ্ঠ থেকে অনুষ্ঠুভ ছন্দ সহস উচ্চারিত হল । কল্পনা করা যাক, বিশ্বস্বষ্টির পূর্বে স্বষ্টিকর্তার ধ্যানে সহসা জ্যোতি উঠল জেগে । এই জ্যোতির আছে অফুরান বেগ, আছে প্রকাশশক্তি । স্বতই প্রশ্ন উঠল, অনন্তের মধ্যে এই জ্যোতি নিযে কী করা যাবে। তারই উত্তরে জ্যোতিরাত্মক অণুপরমাণুর সংঘ নিত্য-অভিব্যক্ত বিচিত্র রূপ ধরে আকাশে আকাশে আবর্তিত হয়ে চলল— এই বিশ্বব্ৰহ্মাণ্ডের