পাতা:সাহিত্যের পথে - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


২০ সাহিত্যের পথে অন্য দেশেও এমন ঘটে। ইংলণ্ডে ইম্পরিযালিজমের জরোত্তাপ যখন ঘণ্টায় ঘণ্টায় চড়িয়া উঠিতেছিল তখন একদল ইংরেজ কবির কাব্যে তাহারই রক্তবর্ণ বাস্তবতা প্রলাপ বকিতেছিল। তাহার সঙ্গে যদি তুলনা করা যায তবে ওয়ার্ডস্বার্থের কবিতায বাস্তবতা কোথায । তিনি বিশ্বপ্রকৃতির মধ্যে যে-একটি আনন্দময আবির্ভাব দেখিতে পাইযাছিলেন তাহার সঙ্গে ব্রিটিশ জনসাধারণের শিক্ষা দীক্ষা অভ্যাস আচার বিচারের যোগ ছিল কোথায । তাহার ভাবের রাগিণীটি নির্জনবাসী একলা-কবির চিত্ত-বাশিতে বাজ্যিাছিল— ইংরেজের স্বদেশী হাটে ওজনদরে যাহা বিক্রি হয এমনতরো বস্তুপিণ্ড তাহার মধ্যে কী আছে জানিতে চাই । আর কীটস্ শেলি— ইহাদের কাব্যের বাস্তবতা কী দিয নির্ধারণ করিব। ইংরেজের জাতীয চিত্তের সুরের সঙ্গে সুর মিলাইষা কি ইহার বকশিশ ও বাহবা পাইযাছিলেন। যে-সমস্ত সমালোচক সাহিত্যের হাটে বাস্তবতার দালালি করিযা থাকেন তাহারা ওযার্ডস্বার্থের কবিতার কিরূপ সমাদর করিযাছিলেন তাহ ইতিহাসে আছে। শেলিকে অস্পৃশ্য অস্ত্যজের মতে র্তাহার দেশ সেদিন ঘরে ঢুকিতে দেয নাই এবং কীটুসকে মৃত্যুবাণ মারিযাছিল। আরও আধুনিক দৃষ্টান্ত টেনিসন। তিনি ভিক্টোরীয যুগের প্রচলিত লোকধর্মের কবি । তাই তাহার প্রভাব দেশের মধ্যে সর্বব্যাপী ছিল । কিন্তু ভিক্টোরীয যুগের বাস্তবতা যত ক্ষীণ হইতেছে টেনিসনের আসনও তত সংকীর্ণ হইযা আসিতেছে। র্তাহার কাব্য যে গুণে টি-কিবে তাহ নিত্যরসের গুণে, তাহাতে ভিক্টোরীয ব্রিটিশ-বস্তু বহুল পরিমাণে আছে বলিযা নহে— সেই স্থূল বস্তুটাই প্রতিদিন ধবসিয। পড়িতেছে। আমাদের কালের লেখকদের মোটা অপরাধটা এই যে, আমরা