পাতা:সাহিত্যের পথে - রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর.pdf/২৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


বাস্তব ২৩ মেঘদূতের তো কথাই নাই। কালিদাস স্বযং এই বাস্তববাদীদের ভযে এক জাযগাষ নিতান্ত অকবিজনোচিত কৈফিযত দিতে বাধ্য হইযাছিলেন– কামার্তা হি প্রকৃতিকৃপণাশ্চেতনাচেতনেষু। আমি অকবিজনোচিত এইজন্য বলিতেছি যে, কবিমাত্রই চেতনঅচেতনের মিল ঘটাইযা থাকেন, কেননা তাহারা বিশ্বের মিত্র, তাহারা ন্যাযের অধ্যাপক নহেন ; শকুন্তলার চতুর্থ অঙ্ক পড়িলেই সেটা বুঝিতে বাকি থাকিবে না । কিন্তু আমি বলিতেছি, যদি কালিদাসের কাব্য ভালো হয তবে সমস্ত মানুষের জন্যই তাহা সকল কালের ভাণ্ডারে সঞ্চিত রহিল— আজকের সাধারণ মানুষ যাহা বুঝিল না কালকের সাধারণ মানুষ হযতে তাহ বুঝিবে, অন্তত সেইরূপ আশা করি। কিন্তু কালিদাস যদি কবি না হইয লোকহিতৈষী হইতেন তবে সেই পঞ্চম শতাব্দীর উজ্জযিনীর কৃষাণদের জন্য হযতে প্রাথমিক শিক্ষার উপযোগী কযেকখানা বই লিখিতেন— তাহা হইলে তার পর হইতে এতগুলা শতাব্দীর কী দশা হইত। তুমি কি মনে কর লোকহিতৈষী তখন কেহ ছিল না। লোকসাধারণের নৈতিক ও জাঠরিক উন্নতি কী করিষা হইতে পারে সে কথা ভাবিয কেহ কি তখন কোনো বই লেখে নাই । কিন্তু সে কি সাহিত্য । ক্লাসের পডা শেষ হইলেই বৎসর-অন্তর ইস্কুলের বইযের যে দশা হয তাহাদেরও সেই দশা হইযাছে, অর্থাৎ স্বেদ-কম্প-রোমাঞ্চর ভিতর দ্যিা একেবারেই দশম দশা । যাহা ভালো তাহাকে পাইবার জন্য সাধনা করিতেই হইবে— রাজার ছেলেকেও করিতে হইবে, কৃষাণের ছেলেকেও । রাজার ছেলের সুবিধা এই যে, তাহার সাধনা করিবার সময আছে, কৃষাণের ছেলের নাই । কিন্তু সেটা সামাজিক ব্যবস্থার তর্ক— যদি প্রতিকার করিতে পারে, করিযী দাও, কাহারও আপত্তি হইবে না। তানসেন তাই বলিয