পাতা:সুকুমার রায় রচনাবলী-দ্বিতীয় খন্ড.djvu/৩৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


সকলে । সকলে । পঞ্চম ৷ সকলে । চশমা পরে বিচার করে, চিরে দেখাই চুল— উঠতে বসতে করছে সবাই হাজার গণ্ডা ভুল । আমার চোখে ধুলো দেবে সাধ্যি আছে কার ? ধমক শুনে ভূতের বাবা হচ্ছে পগার পার । হাসছ ? বটে । ভাবছ বুঝি মস্ত তুমি লোক, একটি আমার ভেংচি খেলে উলেট যাবে চোখ । দিচ্ছ গালি, লোকের তাতে কিবা এল গেল ? আকাশেতে থুতু ছুড়ে–নিজের গায়েই ফেল । আমার নাম “কিন্তু’, আমায় “কিন্তু’ বলে ডাকে, সকল কাজে একটি কিছু গলদ লেগে থাকে । দশটা কাজে লাগি কিন্তু আটটা করি মাটি, ষোলো-আনা কথায় কিন্তু সিকিমাত্র খাটি । লককবক্ষেপ বহৎ কিন্তু কাজের নেইকো ছিরি-— ফোস্ করে যাই তেড়ে—আবার ল্যাজ গুটিয়ে ফিরি । পাচটা জিনিস গড়তে গেলে, দশটা ভেঙে চুর— বল্‌ দেখি ভাই, কেমন আমি সাবাস বাহাদুর । উচিত তোমায় বেঁধে রাখা নাকে দিয়ে দড়ি, বেগার খাটা পণ্ড কাজের মূল্য কানাকড়ি । আমার নাম ‘তবু, তোমরা কেউ কি আমায় চেনো ? দেখতে ছোটো, তবু আমার সাহস আছে জেনো । এতটুকু মানুষ, তবু দ্বিধা নাইকো মনে, যে কাজেতেই লাগি আমি খাটি প্রাণপণে । এমনি আমার জেদ, যখন অঙ্ক নিয়ে বসি, একুশবারে না হয় যদি, বাইশবারে কষি । হাজার আসুক বাধা, তবু উৎসাহ না কমে, হাজার লোকে চোখ রাঙালে, তবু না যাই দমে । নিষ্কম্মারা গেল কোথা, পালাল কোন দেশে ? কাজের মানুষ কারে বলে দেখুক এখন এসে । হেসে খেলে, শুয়ে বসে, কত সময় যায়, সময়টা যে কাজে লাগায়, চালাক বলে তায় । সুকুমার সমগ্র রচনাবn । ২