পাতা:সুকুমার রায় রচনাবলী-প্রথম খন্ড.djvu/২৩১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কেবল। দেখলেন মশায় ? আমাকে অপমান কললে। আমায় ইয়ার-বকশী বললে, অমন কললে কিন্তু আমি গাইব না। পণ্ডিত। তা নাই-বা গাইলে—কে তোমাকে মাথার দিব্যি দিচ্ছে ? যা না গান ! গানের ধমকে আমাদের পযন্ত পিলে চমকে ওঠে --তা, অন্যে পরে কা কথা! ছাতা ও বিশাল পাটলি লইয়া বামকানাইয়ের প্রবেশ রামকানাই। (ঘটিরাম ও কেটার প্রতি) আপনাদের কি হয়েছে ? অমন করে বসে আছেন যে ? কাশি? জর ? নাড়া মাথা : ঠান্ডা লাগবে বলে ? পড়িত। (ঘটিরাম ও কেটার প্রতি) কি হে, এখানে এসে হাজির হয়েছ ? আচ্ছা বেরিয়ে নাও তারপর— রামকানাই কতৃক পণ্ডিতসকধে পাটলি পথাপন তুমি কি রকম মানুষ হে ? রামকানাই। কেন ? বেশ দিব্যি মানুষটি। পন্ডিত। বলি চোখ দিয়ে দেখতে পাও না কি ? রামকানাই। চোখ দিয়ে দেখতে পাই না তো কি কান দিয়ে দেখতে পাই ? পড়িত। না হে, তুমি বড় বাচাল - শাস্ত্রে বলেছে— রামকানাই। না-শাস্ত্রে আমার সম্বন্ধে কিছর বলে নি— পণ্ডিত । আহা, বলি, তোমায় তো কেউ এখেনে ডাকে নি ? রামকানাই। ডাকবে আবার কি ? এ কি নিলেমের মাল পেয়েছ যে ডাকাডাকি করবে ? v পন্ডিত। হ্যাঁ, তবে অমন করে বসে থাকলে তো ভালো দেখায় না । রামকানাই। ভালো দেখায় না কি হে ? তোমাকে যে অশথগাছের মামদো ভূতের মতো দেখা যায়, সে বেলা কি ? পণ্ডিত। আহা, বলি, যদি কিছু বলবার ૨૨૭ থাকে, তা ঝটপট বলে বাড়ি যাও-না কেন ? রামকানাই। হ্যাঁ, তাহলে তুমিও আমার প:টলিটা সরাবার সুবিধা পাও। পণ্ডিত। কি আপদ! বলি পটলিটা রেখে যেতে বললে কে ? নিয়েই যাও-না কেন ? রামকানাই। মটের পয়সা দেবে কে ? পন্ডিত। হাঃ—মটের পয়সা দেবে কে ? মটের পয়সা দেবে! রামকানাই । উঃ! দৎ ! তোমার ময়লা চাদরটা আমার নাকের কাছে নেড়ো না । জমিদারের প্রবেশ খে’টরাম। সর সর, জমিদারমশাই আসছেন। দলিরাম। হ্যাঁ, হ্যাঁ, সর, সর। জমিদার। কি রে! রামা কখন এলি ? বেশ, বেশ, ভালো আছিস তো ? রামকানাই । (প্রণাম করিয়া) আজ্ঞে এই মাত্র আসছি— পন্ডিত । আপনার এই লোকটা ভারি উদ্ধতস্বভাব -কথা বলে যেন তেড়ে মারতে আসে। জমিদার। ওরে রামা! বাবদের কিছু বলিস টলিস নে। রামকানাই। যে আজ্ঞে। জমিদার। ও আমার বহনকেলে পরোনো চাকর কিনা—কারীর কথা-টথা বড় শোনে না। তবে লোকটা ভালো—দেশে গিছিল, আজ বহনকাল পরে এল। খে’টরাম। ইনি হচ্ছেন কেবলচাদ ওস্তাদ– দলিরাম। মস্ত গাইয়ে। খে"ট্রাম। আশ্চর্য! যত ওস্তাদ এসেছিল, ওঁর চেহারা দেখেই দে চম্পট। দলিরাম, তা হবে না?এরই গান শানে আমাদের নবাবসাহেব মুছে গেছিলেন, এরই গান শনিবার জন্য কিষাণবাব তেতাল্লিশ মাইল পথ হেটে গেছিলেন— খে’টরাম। একে সভায় রাখতে কত রাজা বাদশা হন্দ হল। দলিরাম। কত টাকাকড়ির শ্রান্ধ হল। সুকুমার সমগ্র রচনাবলী