পাতা:সুকুমার রায় রচনাবলী-প্রথম খন্ড.djvu/২৩৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


দলিরাম। হ্যাঁ—আমি দেখিছি, সাদা মতন আবার ন্যাজ আছে। কার ন্যাজ কে জানে ? রামকানাইয়ের দ্রুত প্রবেশ রামকানাই। এই রে সেই দাড়িওয়ালা ! সেই দাড়িওয়ালা বাবটা আমায় তেড়ে এসেছিল ! উঃ ! সকলে। কি হয়েছে! কি হয়েছে ? রামকানাই । সেই বাইরের ঘরের বাবরা— উঃ—আমায় বেদম মারপিট করেছে! একজন ছাগলদাড়ি বাব আছে, সে আমায় দেখেই হঠাৎ ছাতের সমান লাফ দিয়ে তেড়ে এসেছিল– উঃ! পণ্ডিত। সিকী রে! তুই করেছিলি কি ? রামকানাই। আমি তো কিচ্ছ করি নি – আমি বললাম, এখেনে ঢোল বসবে, বাবরা যদি একটু অন্যত্তর যান, নেহাত যদি না যান, আপনাদের ঘাড়ে ধাক্কা দেওয়া হবে। দলিরাম। কি ভদ্রলোককে এমনি করে ইনসালট! খে"ট্রাম। যত বড় মুখ নয় তত বড় কথা! রামকানাই। আমি তো মিচিট করে বলেছিলাম— খে"ট্রাম। ব্যাটা, তোমায় মিষ্টি জমতো না দিলে তুমি সিধে হবে না— পণ্ডিত। আমার জিনিসপত্রগুলো কি কললি ? রামকানাই। ঐ যে, বাইরের উঠোনে ফেলে রেখেছি! পণ্ডিত। দেখলেন মশাই, কান্ডটা দেখলেন? রামকানাই। এই বাবটি যে বললেন! পণ্ডিত। যা, যা, যেখানে হয় শিগগির বন্দোবসত করে দে! আমাদের ন্যায়শাসের এক জায়গায় এমনি লিখেছে— রামকানাই। বলি ন্যায়শাস্ত্র শনলে তো আর পেট ভরবে না ! তোমরা কি এইখেনে বসেই রাত কাবার করবে নাকি? জমিদারমশায়ের কি আর খাওয়া-দাওয়া নেই ? ミ○0 জমিদার। ওরে রাম, আমন করে বলতে নেই—বাবদের মান্য করে কথা বলিস—আর পণ্ডিতমশাইকে কি চোখ রাঙায় ? রামাকানাই। যে আজ্ঞে, E: 26TI পন্ডিতমশাই! পণ্ডিত। রামা, নেতাইবাবর বাড়ি আমার দুই পোড়ো থাকে, তাদের খবর দিস তো। [ পণ্ডিত, খেটরাম ও দলিবামের প্রস্থান জমিদার, রামা, দেখছিস তো কান্ডটা ? রামকানাই। আজ্ঞে হ্যাঁ— জমিদার। উৎপাত যে বেড়ে চলল—কি করা যায় ? রামকানাই। আজ্ঞে, হুকুম পেলেই সব সাফ করে দি । জমিদার। না, না, ওরা আপনা থেকে উঠে যায়, এমন কিছু করা যায় না ? অথচ আমার নিন্দেটা না হয়! রামকানাই । তাহলে ওদের ঘরে লঙ্কার ধোঁয়া দিলে হয় না ? জমিদার। দংে! এটাকে কিছল জিগগেস করাই ঝকমারি! যা, তুই এক কাজ কর – আমার মামার-বাড়ি যা । সেখেন থেকে কেদারমামাকে ডেকে আনবি—-তাকে সব বলে কয়ে আনিস! রামকানাই । যে আজ্ঞে— জমিদার। মামা এলেই সব সিধে করে দেবে— উকিলে বন্ধি কিনা! গান নাছোড়বান্দা নড়েন না! উড়ে আসেন, জড়ে বসেন, মাথায় কেন চড়েন না! নাছোড়বান্দা নড়েন না! যাবার নামটি করেন না, ধাক্কা দিলে সরেন না! নাছোড়বান্দা নড়েন না! কচ্ছে সবাই যাচ্ছে তাই! চাকর ব্যাটা দিচ্ছে গালি, হাঁ করে সব খাচ্ছে তাই! সুকুমার সমগ্র রচনাবলী