পাতা:হলুদ পোড়া - মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/১০০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

SIN) হলুদ পোড়া খানিক ঘুরিয়া একাই সিনেমা দেখিতে গেল। মানুষের সরলতা ও সুচরিত্রতা তার কাছে হঠাৎ মুল্যহীন, অর্থহীন, অকারণ মনে হুইতেছিল। কি আসিয়া যাইত সে সময় সুনীতিকে ক্ষমা করিলে, তার চাকরীর খবর গেজেটেড হওয়ার পর সুনীতি যখন তাকে একখানা, পত্র লিখিয়াছিল ? হাসিরাশি। ওমিলনাইন তেল মাখিয়া চুল বাধে, সারারাত তার মাথাটি থাকে প্ৰমথের মাথার পাশে। ভাল ঘুম হয় না প্ৰমথের । দিনের বেলা বাড়ীর যেখানে যায় সেখানেই যেন প্রমথ ওমিলনান্টুনের গন্ধ পায়, আত্মীয়-স্বজনেরা যেন ঘুরিয়া বেড়ায় ওমিলনাহনের গন্ধ DDDBS DiBDDBDDB BDBB DBBBDB BBB DBO DDD DDDD DDD মোহিত হইয়া গিয়াছে। সকলে আগ্রহের সঙ্গে ওই তোলটাই ব্যবহার করে। হাসিরাশি• নারী পুরুষ নির্বিবশেষে সকলকেই তোলটা বিলায় । স্নানের আগে প্রমথকেও মাখিতে দেয়। • প্রমথ হঠাৎ বলে, ইয়াকি হচ্ছে নাকি আমার সঙ্গে ? হাসিরাশি স্তম্ভিত হইয়া प्न, ইয়াকি ? কি বলছি তুমি ? প্রমথ মুখ ফিরাইয়া বলে, আমি সৰ্যের ৫ তল ছাড়া কিছু মাথিনা चांन न लूभि ? একদিন অন্ত তেল মাখতে বললে বুঝি মহাভারত অশুদ্ধ হয়ে যায় ? হাসিরাশি অভিমান করিয়া থাকে। স্ত্রীর অভিমান ভাঙ্গাইতে গিয়া এবার প্রমীথের মন ক্ষোভে দুঃখে পূর্ণ হইয়া যায়। আর একজন মিষ্টি মিষ্টি কথা বলিয়া ভাঙ্গাইবে শুধু এই জন্য যে অভিমান, এবার সে অভিমানকে তার অতি কদৰ্য্য বলিয়া মনে হয় । সরলতা না ছাই ৷ ”