পাতা:১৫১৩ সাল.pdf/৩৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটিকে বৈধকরণ করা হয়েছে। পাতাটিতে কোনো প্রকার ভুল পেলে তা ঠিক করুন বা জানান।
২৬
১৫১৩ সাল।

দেখিতে পারে না; তাহার অনেক প্রমাণ পাওয়া গিয়াছে। যাহা হউক, দেখা যাউক সে কি করে।”

 “লোকটা আমাদের উপর কটাক্ষ করিতে ছাড়ে নাই।” বিপ্রদাস বাবু বলিলেন। “বলে কিনা একচেটিয়া অধিকার প্রাপ্ত হইয়াছে। পাগল আর কি?”

 সুধাময়বাবু বলিলেন:—

 “আপনি কথাটা উড়াইয়া দিতেছেন বটে, কিন্তু ইহা একটী চিন্তার বিষয়। যদি তাহারা গভৰ্ণমেন্টের নিকট হইতে একচেটিয়া অধিকার লয়, তাহা হইলে আমাদের কারবার চলিবে না নিশ্চিত। আর একটা কথা। যদি কোন ভিন্ন গভর্ণমেন্ট বা জলদস্যু আমাদের আক্রমণ করে, তাহা হইলে আমাদের সকল চেষ্টাই পণ্ড হইয়া যাইবে।”

 বন্ধুবর উত্তর দিলেন:—

 “আপনি যাহা বলিয়াছেন তাহা আংশিক সত্য বটে। কিন্তু দেখুন, আমি তাহার বন্দোবন্ত না করিয়া আগে হইতে সাবধান না হইয়া কার্য্যে প্রবৃত্ত হই নাই। একটু বিস্তারিত করিয়া বলি। প্রথম একচেটিয়ার কথা। একচেটিয়া কোথায় হইতে পারে? না, যেখানে রাজার রাজ্য আছে। neutral zone তো ইংরাজীতে যাহাকে No man’s land বলে তাহাই। সেখানে কোন রাজার রাজ্য নাই। অতএব তথায় কার্য্য করিলে একচেটিয়া-ওয়ালারা আমাদের কোনরূপ ক্ষতি করিতে পরিবে না। আপনি বলিতে পারেন, “কেন, neutral zone এ কার্য্য নাইবা করা হইল? রাজ্যের সীমানার মধ্যে করুন না কেন?” আমি তাহা করিতে প্ৰস্তুত নাহি। কেননা তাহা হইলে গভর্ণমেন্টের তদারক ও অন্যান্য হাঙ্গামায় পড়িতে হইবে। ফলে, অনেক অর্থ বৃথা ব্যয় হইয়া যাইবে। সুতরাং লাভের অংশ কমিয়া যাইবে। তাহার পর, জলদস্যু ও ভিন্ন গভর্ণমেণ্টের আক্রমণের কথা। তাহারও