পাতা:১৯০৫ সালে বাংলা.pdf/১২৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


[ 5-2 1 ক্রমে সভাগৃহ জন-শূন্ত হইল। উৎসবাস্তে নাট্যমঞ্চ যেমন -বিষাদ-মণ্ডিত হয়, এখানেও সেইরূপ বা ততোধিক বিষাদের কালিমা দৃষ্ট হইল। ইংরাজ রাজ্যে নবশাসন-প্রণালীর সুস্পষ্ট প্রতিকৃতি সৰ্ব্বজন সমক্ষে প্রকটিত হইল ! পরামর্শ সভার বাদানুবাদ । প্রাদেশিক সমিতি ভঙ্গ হইবার পরেই স্থানীয় মিউনিসিপালিটির চেয়ারম্যান বাবু রজনীকান্ত দাস মহাশয়ের বাটীতে একটি পরামর্শ সভার অধিবেশন হয়। পরামর্শকালে কথা-প্রসঙ্গে কাব্যবিশারদ মহাশয়ের সহিত বাবু বিপিনচন্দ্র পালের কিঞ্চিং বাগবিতগু হয়। পুলিশের ভয়ে সমিতির মণ্ডপ পরিত্যাগ উপলক্ষে মতভেদই এই বিষয়ের সূত্রপাত হয় । কাব্যবিশারদ মহাশয় পুলিশের ভয়ে সভা ভাঙ্গিয়া সরিয়া যাইবার পক্ষপাতী ছিলেন না । বাৰু বিপিনচন্দ্র পাল কাব্যবিশারদ মহাশয়ের অমুযোগের উত্তরে বলেন, আমি লাঠি মানি, গবর্ণমেণ্ট মানি না। তাই লাঠি দেখিয়াই সরিয়া গিয়াছিলাম। কাব্যবিশারদ বলিলেন, আমি গবর্ণমেণ্ট মানি, লাঠি মানি না । এই কথা সভাপতি মিঃ রমুল, শ্ৰীযুক্ত হালিম গজনবি, মাননীয় ভূপেন্দ্রনাথ বস্থ, যোগেশচন্দ্র চৌধুরী, শ্ৰীযুক্ত সুরেন্দ্রনাথ, শ্ৰীযুক্ত গীপতি রায় চৌধুরী, মৌলবী আবুল হোসেন, বাৰু মতিলাল ঘোষ এবং ময়মনসিংহ, ঢাকা, চট্টগ্রাম ও বরিশাল প্রভৃতি স্থানের বহু প্রধান ব্যক্তির সমক্ষে হইয়াছিল।