পাতা:১৯০৫ সালে বাংলা.pdf/৮৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


J 8ר ] ময়মনসিংহের উজ্জল দৃষ্টান্ত যদি বঙ্গের অন্যান্য স্থানে অনুকৃত হয় তাহা হইলে ইহাদিগের লাঞ্ছনাভোগ সার্থক হইয়াছে একথা সকলেই বুঝিবেন । ময়মনসিংহের অন্যতম নেতা পুণ্যশ্লোক বাবু অনাথবন্ধু গুহের উপর বিতরণের ভার অপিত হইয়াছিল । বল্লা—ময়মনসিংহ । আবদুল রসীদ নামক একব্যক্তি দ্বারা রাজেন্দ্রলাল সাহা নামক একটা সপ্তদশ বৎসর বয়স্ক বালকের বিরুদ্ধে দাঙ্গা প্রভৃতির দাবীতে দণ্ডবিধির ১৪৭ ও ৩০৯ ধারায় অভিযোগ উপস্থাপিত করা হয়। বিচারালয়ে বালক রাজেন্দ্র বিদেশী কলমে নাম স্বাক্ষর করিতে চাহে নাই । তাহার দুই সপ্তাহ কঠোর কারাবাস ও ৬০২ টাকা জরিমানা হইয়াছিল ! সম্মান প্রদর্শনের দিবসে মোকৰ্দমা বিচারাধীন ছিল, তথাপি সৰ্ব্বসম্মতিক্রমে “বন্দেমাতরমূ” শব্দাঙ্কিত রজত বন্ধনী বা ক্ৰচ তাহাকে প্রদত্ত হয়। ময়মনসিংহ–টাঙ্গাইল । ডাক্তার শশিধর নিয়োগী পুলিশ দ্বারা গুরুতর ভাবে প্রহৃত হন । র্তাহাকে রজত পরিদোলক প্রদানে অনুরাগ প্রকাশ করা হইয়াছিল । বরিশাল—মাধবপাশা ৷ শ্ৰীযুক্ত বিলাসচন্দ্র কুঞ্জবিহু সেটেলমেণ্ট অফিসারকে “বন্দেমাতরং” শব্দে অভিনন্দন করিয়া দণ্ড বিধির ১৫৭ ও ১০৬ ধার।