পাতা:Bharatkosh 1st Vol.pdf/১১১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


________________

অদ্বৈতবাদ মঙ্গল’ প্রভৃতি গ্রন্থ রচিত হইয়াছে, কিন্তু ঐ গ্রন্থগুলি যথেষ্ট প্রামাণিক নহে। বিমানবিহারী মজুমদার অদ্বৈতবাদ অদ্বৈতবাদ উপনিষদে বর্ণিত জীবাত্মা ও ব্রহ্মের অভেদ কল্পনার উপর প্রতিষ্ঠিত প্রাচীন ভারতের অন্যতম প্রধান দার্শনিক মত। বৃহদারণ্যক প্রভৃতি প্রধান প্রধান উপনিষদের মতে সমগ্র বাহ্যিক জগতের বৈচিত্র্যের মধ্যে একটি স্থির শাশ্বত মূলতত্ত্ব রহিয়াছে। এই তত্ত্ব অনাদি, অনন্ত, নিত্য ধ্রুব শাশ্বত হইলেও স্বীয় বিশেষ শক্তি দ্বারা এই পাঞ্চভৌতিক জগৎ সৃষ্টি পূর্বক স্বয়ং তাহাতে প্রবেশ করিয়া তাহাকে সত্তার আভাস দান করিয়াছেন। এই সমস্ত বস্তুতে অস্ত তত্ত্বই সচ্চিদানন্দ স্বরূপ ব্ৰহ্ম । আবার এই সচ্চিদানন্দ স্বরূপই স্বীয় বুদ্ধমুক্তস্বভাবকে আবৃত করিয়া বদ্ধজীবরূপে জগৎ ভােগার্থে প্রকাশমান। অতএব একটি অখণ্ড আত্মচৈতন্যই জগৎপ্রপঞ্চরূপে ভােগের বিষয় ও অসংখ্য জীবরূপে ভােগের কর্তা। জীবাত্মা ও পরমাত্মা, জীব ও জগৎ এবং জগৎ ও পরমাত্মায় যে কোনও ভেদই। নাই, ইহাই অদ্বৈতবাদের যথার্থ বক্তব্য তত্ত্ব। দ্বৈতের অভাবই অদ্বৈত। এই মতে সত্য এক অদ্বিতীয় ও চিরন্তন। | এই মতকে উপজীব্য করিয়া প্রথম গৌড়পাদাচার্য মাক্য উপনিষদের কারিকা রচনা করেন। তাহার মতে স্বীয় মায়াশক্তি দ্বারা পরচৈতন্য জগদ রূপ মায়ার বিলাস সৃষ্টি করিয়াছেন। প্রকৃতপক্ষে জগতের নিজস্ব স্বাধীন সত্তা নাই। মায়াকল্পিত জীব মায়াকল্পিত শরীর ধারণ করিয়া মায়াকল্পিত জগৎসংসারে বিচরণ করিতেছে। পারমার্থিক দৃষ্টিতে জীব বা জগতের উৎপত্তিও নাই ধ্বংসও নাই। | গৌড়পাদাচার্যের প্রভাবে শংকরাচার্য অদ্বৈততত্ত্ব দৃঢ়। প্রতিষ্ঠিত করিবার জন্য প্রধান প্রধান উপনিষৎ ও ব্যাসরচিত বেদান্তসূত্রের উপরে ভাষ্য রচনা করেন। এতদব্যতীত বিভিন্ন স্থানে মঠস্থাপন দ্বারা অদ্বৈতবাদচর্চার পথ সুগম করিয়া তিনি মতটি এমন সুপ্রতিষ্ঠিত করেন যে পূর্বচর্চা থাকা সত্ত্বেও তাহাকেই অদ্বৈতবাদের স্থাপক বলিয়া গ্রহণ করা হয়। শংকরাচার্য ৭০০ খ্ৰীষ্টাব্দ হইতে ৮০০ খ্ৰীষ্টাব্দ মধ্যে আবিভূত হইয়াছিলেন। ইনি দাক্ষিণাত্যের অধিবাসী ও পিতার নাম শিবগুরু যজুর্বেদী। শংকরাচার্য আত্মার একত্ব স্থাপন করিবার জন্য জগতের মিথ্যাত্ব প্রতিপন্ন করিয়াছেন। এই জগৎমিথ্যাত্ব মতটি মায়াবাদের উপর স্থাপিত। আত্মার অস্তিত্ব সম্বন্ধে কোনও মতভেদ নাই, সমস্ত তর্ক আত্মার স্বরূপ সম্বন্ধে। শংকরাচার্য পরমতখণ্ডনের জন্য যুক্তিতর্ক বিস্তার করিলেও আত্মার স্বরূপ