পাতা:Bharatkosh 1st Vol.pdf/১৩৪৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


উর্মিলা দেবী পরিমাণে সর্বাধিক। মহারাষ্ট্রের কুণ্ডগুলি ইহার দৃষ্টান্ত। যথা, উনহেরা (কোলাবা), উনহারা (রত্নগিরি ) ও বজ্রেশ্বরী ( থানা)। ইহা ব্যতীত কাংড়া উপত্যকায় অবস্থিত জ্বালামুখীর প্রস্রবণের জল আয়ােডিনযুক্ত এবং মহারাষ্ট্রের কিছু কুণ্ডের জলে তেজস্ক্রিয় পদার্থ বর্তমান। কুণ্ডের জলে রােগ নিরাময় হয় বলিয়া লােকপ্রসিদ্ধি আছে। প্রস্রবণের জলে গন্ধক, আয়ােডিন প্রভৃতি মিশ্রিত থাকে বলিয়া সম্ভবতঃ এরূপ ধারণার উৎপত্তি। অবশ্য তেজস্ক্রিয় পদার্থগুলির প্রভাবও এরূপ লােক- প্রসিদ্ধির কারণ হইতে পারে। | শ্রমশিল্পের প্রয়ােজনে ও অন্যান্য কাজে অধুনা উষ্ণ- প্রস্রবণের তাপশক্তি নানাভাবে ব্যবহৃত হইতেছে। উদাহরণ হিসাবে উল্লেখ করা যায়, আমেরিকার ক্যালি- ফোর্নিয়া অঞ্চলের গেজারগুলির নিকট গভীর কূপ খনন করিয়া ভূগর্ভস্থ বাষ্পের সাহায্যে বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হইতেছে। শিবসুন্দর দেব প্রমুখ ভূতত্ত্ববি মনে করেন ভারতের কয়েকটি উষ্ণ প্রস্রবণও এরূপভাবে ব্যবহৃত হইতে পারে। বিশেষতঃ বক্রেশ্বর ও সাঁওতাল পরগনার তাতলােই প্রস্রবণগুলি হইতে তাপশক্তি উৎপাদন সম্ভবপর বলিয়া তাহাদের ধারণা। ভারতের অধিকাংশ উষ্ণ প্রস্রবণ তীর্থমাহাত্ম্যমণ্ডিত। নীল বন্দ্যোপাধ্যায় উর্মিলা দেবী (১৮৮৩-১৯৫৬ খ্রী) পিতা ভুবনমােহন দাস, মাতা নিস্তারিণী দেবী। দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন ইহার অগ্রজ। জন্ম ১৮৮৩ খ্ৰীষ্টাব্দের ৩ ফেব্রুয়ারি। আদি নিবাস ঢাকা বিক্রমপুরের অন্তর্গত তেলিরবাগ গ্রাম। স্বামী অনন্তনারায়ণ সেন। অসহযােগ আন্দোলনে যে তিনজন বাঙালী মহিলা | প্রথম আইন অমান্য করিয়া স্বাধীনতা-সংগ্রামের ইতিহাসে স্মরণীয় হইয়া আছেন, উর্মিলা দেবী তাহাদের অন্যতম। ১৯২১ খ্রীষ্টাব্দের ৭ ডিসেম্বর উমিলা দেবী, সুনীতি দেবী ও | দেশবন্ধুর সহধর্মিণী বাসন্তী দেবী সরকারি নিষেধ অমান্য করিয়া কলি কাতার রাজপথে খদ্দর বিক্রয় করেন এবং তৎকালীন যুবরাজের আগমন উপলক্ষে ২৪ ডিসেম্বর হরতাল পালন করিবার আহ্বান জানান। পুলিশ তাহাদের গ্রেপ্তার করে। ইহার ফলে বিশেষ আলােড়নের সৃষ্টি হয় এবং এই দৃষ্টান্তে উদ্বুদ্ধ হইয়া বঙ্গের অন্যত্রও অনেক মহিলা অসহযােগ আন্দোলনে যােগ দেন। অতঃপর এই সময়ে উর্মিলা দেবী কলিকাতায় যে নারী-কর্মমন্দির প্রতিষ্ঠা