পাতা:Bharatkosh 1st Vol.pdf/৩৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


________________

অক্সিজেন B. Bhattacharya, The Indian Buddhist Iconography, 2nd Edition, Calcutta, 1958. বিশ্বনাথ বন্দ্যোপাধ্যায়। অক্সিজেন রসায়ন বিজ্ঞানের প্রভাতে জানা গিয়াছিল বায়ু মূলতঃ অক্সিজেন (১ আয়তন) ও নাইট্রোজেন ( ৪ আয়তন) গ্যাসের মিশ্রণ। ফরাসী বিজ্ঞানী লাবােয়াজিয়ে পরীক্ষা করিয়া দেখেন যে বায়ুস্থ অক্সিজেন দহনসহায়ক ; অক্সিজেন না থাকিলে কোনও পদার্থ দগ্ধ হয় । অক্সিজেনের শ্বাস লইয়া প্রাণী বাঁচে। এমন কি জলচর। প্রাণী জলে দ্রবিত সামান্য পরিমাণ অক্সিজেনের শ্বাস লয়।। লােহায় মরিচা ধরে লোহার সহিত আদ্র অক্সিজেনের ( বায়ু হইতে ) রাসায়নিক ক্রিয়া হয় বলিয়া। মৃত প্রাণী ও উদ্ভিদের পচনক্রিয়াও ঘটে অক্সিজেনের স্পর্শ লাগে বলিয়া। পর্বতশৃঙ্গ আরােহণকালে শ্বাসকষ্ট উপস্থিত হয় বলিয়া আরােহীর। অক্সিজেনের শ্বাস লইবার জন্য অক্সিজেনপূর্ণ সিলিণ্ডার বহন করে। রােগীর শ্বাসকষ্ট হইলে অক্সিজেনের শ্বাস লইবার ব্যবস্থা করা হয়। অক্সিজেন বেশি পাইলে আগুন গনগনে হয় ; কামারেরা তাই হাপর ব্যবহার করে। লােহা বা ইস্পাত কাটিবার বা দুইখণ্ড গলাইয়া পিটিয়া জুড়িবার জন্য অক্সিজেনমিশ্রিত অ্যাসিটিলিন গ্যাসের বেশি উষ্ণ শিখা ব্যবহার হয়। আজকাল বৈজ্ঞানিক উপায়ে বায়ু তরল করিয়া উহা হইতে অক্সিজেন পৃথক করা গিয়াছে। এই ভাবে বেশি পরিমাণে অক্সিজেন উৎপাদন করা হয়। জিনিস দগ্ধ হয়, ইহার উপাদানের সহিত অক্সিজেনের রাসায়নিক সংযােগ হয় বলিয়া। কাঠ, কয়লা, কেরােসিন সকলই দাহ্য পদার্থ। কার্বন, হাইড্রোজেন প্রভৃতি ইহাদের অন্যতম উপাদান। দহনকালে অক্সিজেনযুক্ত হইয়া কার্বন হইতে কার্বনডাইঅক্সাইড ও হাইড্রোজেন হইতে জলীয় বাষ্প উৎপন্ন হয়। প্রাণীর শ্বাসকার্যে ও কার্বনডাইঅক্সাইড ও জলীয় বাষ্প উৎপন্ন হয়। ইহা মৃদু দহনকার্য । নাসাপথে বায়ু বা অক্সিজেন ফুসফুসে গিয়া রক্তে মিশে। রক্তপ্রবাহের সহিত অক্সিজেনও দেহততে সঞ্চালিত হয়। প্রয়ােজনমত খাদ্যের উপাদান কার্বন, হাইড্রোজেন ইত্যাদির সঙ্গেও যুক্ত হয়। তাহাতে কার্বনডাইঅক্সাইড, জলীয় বাষ্প ইত্যাদি উৎপন্ন হয়। কার্বনডাইঅক্সাইড রক্তপ্রবাহে সঞ্চালিত হইয়া আবার ফুসফুসে ফিরিয়া আসে। সেখান হইতে নাসাপথে প্রশ্বাসের সহিত দেহ হইতে নির্গত হয়। প্রবাহপথে নদী বহিয়া চলে পচা পাতা পল্লব, প্রাণীর