পাতা:Bharatkosh 1st Vol.pdf/৫৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


________________

অচিন্ত্যভেদাভেদবাদ সেই সকল শ্লোক পদ্মপুরাণে নাই। মাধ্ব-সম্প্রদায়ের সহিত বঙ্গীয় বৈষ্ণব সম্প্রদায়ের মিল শুধু সেব্য-সেবকভাব স্বীকার বিষয়ে। কিন্তু কেবল সেব্য-সেবকভাব কেন, উপাস্য, উপাসনাপ্রণালী, লক্ষ্য এবং সাধ্য-সাধনাদি বিষয়ের সমতা থাকিলেও বিভিন্ন সম্প্রদায়ের একত্ব প্রতিপন্ন হয় না। | ব্রহ্মের সহিত জীব ও জগতের সম্বন্ধবিষয়ে মতের প্রভেদ অনুসারেই দার্শনিকেরা সম্প্রদায়ভেদ নির্ণয় করিয়া থাকেন। জগতের সত্যতা সম্বন্ধে বৈষ্ণবাচাৰ্যদিগের দ্বিমত নাই। বৈষ্ণবাচার্যগণ শংকরের মায়াবাদ সমর্থন করেন না। শংকরের। মতে ব্রহ্ম সত্য, জগৎ মিথ্যা এবং জীব স্বরূপতঃ ব্ৰহ্ম । এই মতে ব্রহ্মের সহিত জগতের সম্বন্ধের প্রশ্ন নিরর্থক, কারণ যাহার অস্তিত্ব নাই তাহা ব্রহ্মের সহিত সম্পর্কিত হইতে পারে না। বঙ্গীয় বৈষ্ণবাচাৰ্যদিগের মতে জগৎ নশ্বর, কিন্তু মিথ্যা নহে। জীব স্বরূপতঃ পরব্রহ্মের দাস। শংকরাচার্য কেবলাভেদবাদী। বঙ্গীয় বৈষ্ণবাচার্যেরা জীব ও ব্রহ্মের কেবলাভেদ স্বীকার করেন না। তত্ত্ববাদী মধ্ব-সম্প্রদায়ের মতে ব্ৰহ্ম স্বতন্ত্র বা স্বাধীন তত্ত্ব, জীব ও জগৎ অস্বতন্ত্র ( ব্রহ্মের অধীন ) তত্ত্ব, উহারা চিরকালই ব্ৰহ্ম হইতে পৃথক। এই মতের নাম আত্যন্তিক ভেদবাদ। বঙ্গীয় বৈষ্ণবাচার্যগণকে আত্যন্তিক ভেদবাদী বলা যায় না, কারণ তাহাদের মতে ব্রহ্মের অতিরিক্ত আর কোনও তত্ত্ব নাই; জীব ও জগং ব্রহ্মের বিভিন্ন শক্তির প্রকাশমাত্র। বঙ্গীয় বৈষ্ণবাচার্যগণ কেবলাভেদবাদীও নহেন, কারণ তাহারা ব্রহ্মের সহিত জীবের ও জগতের ভেদও স্বীকার করেন। তাহারা ভেদাভেদবাদী। কিন্তু তাহাদের ভেদাভেদবাদ ভাস্করাচার্যের ঔপচারিক ভেদাভেদবাদের ন্যায় নহে। তাহারা ব্রহ্মে উপাধিসংযােগ কল্পনা করেন না। তাহাদের মতবাদ নিম্বার্কাচার্যের স্বাভাবিক ভেদাভেদবাদের ন্যায়ও নহে। ব্রহ্মের সহিত জীব ও জগতের অভেদকে স্বাভাবিক বলিয়া মনে করিলে জীব ও জগতের দোষসমূহকে ব্রহ্মের স্বাভাবিক দোষ বলিতে হইবে। কিন্তু ব্রহ্মের দোষের কথা শ্রুতিতে নাই। বঙ্গীয় বৈষ্ণবমতে সমুদায় জীব ও জগৎ ব্রহ্মেরই শক্তি। ব্রহ্মের সহিত তাহার শক্তির যুগপৎ ভেদ এবং অভেদ সম্বন্ধ বিদ্যমান। পরস্পরবিরােধী ভেদ এবং অভেদের যুগপৎ অবস্থান যুক্তিতর্কের অগােচর হইলেও তাৰ্থাপত্তি নামক প্রমাণের বলে স্বীকার্য। ব্রহ্মের সহিত জীব ও জগতের এই যুগপৎ ভেদ ও অভেদযুক্ত সম্বন্ধটিকে বঙ্গীয় বৈষ্ণবাচার্যগণ অচিন্ত্যভেদাভেদ আখ্যা দিয়াছেন। অচিন্ত্যভেদাভেদবাদী বঙ্গীয় বৈষ্ণব সম্প্রদায়কে পঞ্চম বৈষ্ণব সম্প্রদায় নামে অভিহিত করাই যুক্তিসংগত।