পাতা:Bharatkosh 1st Vol.pdf/৬১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


________________

অচিন্ত্যভেদাভেদবাদ দিয়া থাকেন। উপলব্ধির পার্থক্য অনুসারে এই অদ্বয়জ্ঞানতত্ত্বেরই ব্ৰহ্ম, পরমাত্মা ও ভগবান্ এই তিন নাম হইয়া থাকে (ভাগবত ১।২।১১)। বেদান্তীগণ অদ্বয়জ্ঞানতত্ত্বকে ব্রহ্ম আখ্যা দিয়া থাকেন, যােগীগণ এই তত্ত্বকে পরমাত্মা বলিয়া থাকেন এবং ভক্তগণ এই তত্ত্বকে। ভগবান্ নামে অভিহিত করিয়া থাকেন। ছান্দোগ্যশ্রুতির অনুসরণ করিয়া আচার্য শংকরও বলিয়াছেন যে ব্ৰহ্ম এক অদ্বিতীয় তত্ত্ব, অর্থাৎ অদ্বয় জ্ঞানতত্ত্ব। তঁাহার মতে ব্রহ্ম এক অদ্বিতীয় তত্ত্ব বলিয়াই তাহাতে স্বজাতীয়, বিজাতীয়, এমন কি স্বগত ভেদও থাকিতে পারে না। এক জাতীয় বিভিন্ন বস্তুর মধ্যে যে পার্থক্য দেখা যায় তাহার নাম স্বজাতীয় ভেদ। একটি অশ্বের সহিত অপর একটি অশ্বের প্রভেদ স্বজাতীয় ভেদের দৃষ্টান্ত। ব্রহ্মের স্বজাতীয় আর কেহ নাই ; সুতরাং তাহার স্বজাতীয় ভেদ নাই। এক জাতীয় পদার্থের সহিত ভিন্ন জাতীয় পদার্থের প্রভেদকে বিজাতীয় ভেদ বলা হয়। চেতন পদার্থের সহিত অচেতন পদার্থের প্রভেদ বিজাতীয় ভেদের দৃষ্টান্ত। জ্ঞানস্বরূপ ব্ৰহ্ম ব্যতীত যখন আর কিছুই নাই। তখন তাহার বিজাতীয় ভেদের প্রশ্নই উঠিতে পারে না। কোনও জীবদেহের সহিত উহার অবয়বসমূহের প্রভেদকে স্বগত ভেদ বলা হয়। বৃক্ষের দেহের মধ্যে মূল, কাণ্ড, শাখা প্রভৃতির ভেদবৈচিত্রী আছে বলিয়া বৃক্ষের সহিত উহার মূলকাণ্ডাদির স্বগত ভেদ স্বীকার করা হয়। কিন্তু ব্রহ্মের স্বগত ভেদ স্বীকার করা যায় না। কারণ। ব্রহ্মের স্বরূপের মধ্যে কোনও বৈচিত্র্য নাই; ব্ৰহ্ম নির্বিশেষ চৈতন্যস্বরূপ। ব্রহ্মের শক্তি বা গুণ স্বীকার করিলে ব্রহ্মের সহিত উক্ত শক্তি বা গুণের ভেদও স্বীকার করিতে হইবে। ভেদ স্বীকার করিলে অদ্বয়ত্বের হানি হইবে, এই ভয়ে শংকর ব্রহ্মকে নিঃশক্তিক ও নিগুণ বলিয়া অভিহিত করিয়াছেন। তিনি ব্রহ্মের সর্বশক্তিমত্তা ও সর্বজ্ঞাদিজ্ঞাপক শ্ৰতিসমূহের পারমার্থিক মূল্য স্বীকার করেন নাই। তাহার মতে শুধু উপাসনার সুবিধার জন্যই শ্রুতিতে ব্রহ্মের সবিশেষত্বাদির কথা বলা হইয়াছে। সর্ববিধ ভেদরহিত, নিগুণ, নির্বিশেষ ব্ৰহ্মই একমাত্র সত্য। ভগবৎস্বরূপসমূহ মায়াপ্রসূত। শংকরাচার্য শ্ৰতিবাক্যের অন্তর্গত অনেক শব্দের মুখ্যা বৃত্তি পরিত্যাগ করিয়া লক্ষণ। ও গােণী বৃত্তির আশ্রয় গ্রহণ করিয়াছেন। তত্ত্বমসি’ শ্রুতির ব্যাখ্যায় শংকর যাহা বলিয়াছেন তাহার সারাংশ এইরূপ- ‘তৎ’ শব্দের অর্থ সর্বজ্ঞ, সর্বশক্তিমান চিরূপ ব্ৰহ্ম এবং ‘বং’ পদের অর্থ অল্পজ্ঞ, অল্পশক্তিমান চিরূপ জীব। ব্রহ্মের সর্বজ্ঞাদি এবং জীবের অল্পজ্ঞদি বৈশিষ্ট্য