পাতা:Bharatkosh 1st Vol.pdf/৭১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


________________

অচিন্ত্যভেদাভেদবাদ উপাসনার কথা আছে। ইহাদের মধ্যে ভক্তি অভীষ্টলাভের সর্বশ্রেষ্ঠ উপায়। কর্ম, জ্ঞান ও যােগের ফল ভক্তির ফলের তুল্য নহে। একমাত্র ভক্তির দ্বারাই কর্মাদির অভীষ্ট ফল লাভ করা যাইতে পারে; কিন্তু কর্মাদি দ্বারা ভক্তির ফল লাভ করা যায় না। ভক্তির ফলে শুধু মুক্তি নহে, ভগবৎ প্রেমও লাভ হয়। বদ্ধজীব ইন্দ্রিয়াদি দ্বারা যে ভক্তির অনুশীলন করে তাহার নাম সাধনভক্তি। সাধনভক্তির সহিত কর্ম-জ্ঞানাদির সংমিশ্রণ। থাকিলে তাহাকে মিশ্রা ভক্তি বলা হয়। মিশ্রা ভক্তিদ্বারা কৃষ্ণপ্রেম লাভ হয় না। কর্মমিশ্র ভক্তিতে ফলভভাগের আকাঙ্ক্ষা এবং জ্ঞানমিশ্র ভক্তিতে মােক্ষলাভের আকাঙ্ক্ষা থাকে। শুদ্ধা সাধনভক্তিতে কৃষ্ণসেবার বাসনা ব্যতীত অন্য কোনও বাসনা থাকে না। শুদ্ধা ভক্তির সাহায্যে কৃষ্ণপ্রেম লাভ হয়। কৃষ্ণের প্রীতির অনুকূলভাবে কায়মনােবাক্যে কৃষ্ণবিষয়ক অনুশীলনের নাম শুদ্ধা ভক্তি। শুদ্ধা সাধনভক্তির চৌষটি অঙ্গের মধ্যে শ্রবণ, কীর্তন, স্মরণ, পাদসেবন, অর্চন, বন্দন, দাস্য, সখ্য ও আত্মনিবেদন, এই নয়টি প্রধান। নবধা ভক্তির মধ্যে নামসংকীর্তনই সর্বশ্রেষ্ঠ। ভগবানের নাম ও ভগবান্ বস্তুতঃ অভিন্ন। নাম অন্যান্য ভজনাঙ্গের অপূর্ণতা পূর্ণ করিতে পারে ; ইহা স্বয়ং ভগবাকেও বশীভূত করিতে পারে। সাধকের চিত্তের অবস্থা অনুসারে সাধনভক্তিকে বৈধী ও রাগাগা, এই দুই শ্রেণীতে ভাগ করা হয়। ব্রহ্মাণ্ডাধিপতি, কর্মফলদাতা ভগবানকে ভজন না করিলে পরকালে যন্ত্রণা ভােগ করিতে হইবে, ইহা ভাবিয়া যাহারা ভক্তিমার্গ অবলম্বন করেন। তাহাদের ভক্তির নাম বৈধী ভক্তি। শাস্ত্রবিধিই এই ভক্তির প্রবর্তক। বৈধী ভক্তির ফলে সিদ্ধাবস্থায় ভগবানের ঐশ্বর্যাত্মক স্বরূপের সেবাপ্রাপ্তি ঘটে। যাহারা কৃষ্ণের মাধুর্যে প্রলুব্ধ হইয়া তাহার সেবাষােগ্যতা লাভের উদ্দেশ্যে ভজনে প্রবৃত্ত হন তাহাদের ভক্তির নাম রাগানুগা ভক্তি। কৃষ্ণসেবার লােভই ইহার প্রবর্তক। রাগানুগা ভক্তি দ্বারা কৃষ্ণের প্রেম-সেবা লাভ করা যাইতে পারে। রাগানুগার সাধককে অন্তশ্চিন্তিত দেহে লীলাবিলাসী কৃষ্ণের মানসিক সেবা করিতে হয় এবং যথাবস্থিত দেহে বিধিমার্গের সাধকের ন্যায় শ্রবণ-কীর্তনাদির অনুষ্ঠান করিতে হয় । দাস্য, সখ্য, বাৎসল্য এবং মাধুর্য, এই চারি ভাবের নিত্য পরিকরগণকে লইয়া ব্ৰজে নিরন্তর কৃষ্ণের লীলা চলিতেছে। যে ভাবের সেবার জন্য যে সাধকের চিত্ত প্রলুব্ধ হয় তাহাকে সেই ভাবের পরিকদিগের আনুগত্য স্বীকার করিয়া মানসিক সেবা করিতে হয়। রাগানুগা ভক্তি আনুগত্যময়ী। জীবের দিক হইতে বিচার করিলে মনে হয় যে ভক্তির ভা ১৪