পাতা:Bharatkosh 1st Vol.pdf/৮৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


________________

অজ্ঞাবাদ অবিশ্বাসী নাস্তিক এবং উহাদের অস্তিত্ব সম্বন্ধে জ্ঞানের দাবি করেন জ্ঞানবাদী (gnostic)। এই দুই পর পরবিরুদ্ধ মতবাদ পরিহার করিয়া মধ্যম পন্থা অবলম্বন করেন অজ্ঞাবাদী (agnostic)। অতীন্দ্রিয় তত্ত্ব সম্বন্ধে অজ্ঞাবাদী কিছু স্বীকারও করেন না, আবার অস্বীকারও করেন না। অজ্ঞাবাদের মূলে আছে প্রত্যক্ষৈক প্রমাণবাদ (empiricism)- এখানে প্রত্যক্ষ’ শব্দে কেবল ইন্দ্রিয়জন্য প্রত্যক্ষই। বুঝিতে হইবে। প্রত্যক্ষৈকপ্রমাণবাদী বলেন যে আমাদের সকল জ্ঞানের উৎস হইল ঐন্দ্রিয়জ্ঞান। কিন্তু যদি ইন্দ্রিয়লব্ধ জ্ঞানই আমাদের একমাত্র সম্বল হয় তাহা হইলে আমরা ইন্দ্রিয়াতীত তত্ত্ব সম্বন্ধে কোনও দিনই কিছু জানিতে পারিব না। এইভাবে প্রত্যক্ষৈকপ্রমাণবাদের এক ধারা। অজ্ঞাবাদে পরিণত হইয়াছে, অন্য ধারা পরিণত হইয়াছে। অবিশ্বাসবাদে। অনেকে মনে করেন যে ভারতীয় দর্শনসমূহের মধ্যে প্রাচীন বৌদ্ধদর্শন অজ্ঞাবাদের সমর্থক। কিংবদন্তী আছে যে, বুদ্ধদেবকে যখন আত্মা ও জগৎসংসার সম্বন্ধে দশটি আধিবিদ্যক প্রশ্ন করা হয় তখন তিনি নীরব ছিলেন। এইগুলি ‘দশ অব্যক্তানি’ নামে অভিহিত। কিন্তু বুদ্ধদেব স্বয়ং কতদূর অজ্ঞাবাদী ছিলেন সে সম্বন্ধে সন্দেহের অবকাশ আছে। পাশ্চাত্য দর্শনে agnosticism বা অজ্ঞাবাদ পদটি আধুনিক কালে প্রবর্তন করেন টি. এইচ. হাক্সলি ( T. H. Huxley)। ১৮৬৯ খ্রীষ্টাব্দে অধুনালুপ্ত Metaphysical Society-র অধিবেশনে বিভিন্ন সদস্য যখন তাহাদের নিজ নিজ মতবাদ ব্যাখ্যা করিতেছিলেন তখন হাক্সলি বলেন যে, তাহার নিজস্ব মতবাদ হইল agnosticism (a =ন, gnosticism = জ্ঞানবাদ)। প্রাচীন জ্ঞানবাদী (gnostic) যেমন অতীন্দ্রিয় তত্ত্ব সম্বন্ধে জ্ঞানের দাবি করিতেন, হাক্সলি সেইরূপ সবিনয়ে তাহার অজ্ঞতার কথা নিবেদন করেন। সম্ভবতঃ এ বিষয়ে তিনি হ্যামিল্টন (Hamilton) -এর রচনার দ্বারা প্রভাবিত হইয়াছিলেন। হাক্সলি মনে করিতেন যে, হিউম ( Hume ) ও কান্ট ( Kant) তাহার স্বদলীয়। হিউমের দর্শন প্রত্যক্ষৈকপ্রমাণবাদের চরম নিদর্শন। পূর্বেই বলিয়াছি ইহা শেষ পর্যন্ত হয় সন্দেহবাদে না হয় অবিশ্বাসবাদে পরিণত হয়। কান্ট হার Critique of Pure Reason গ্রন্থে অতীন্দ্রিয় তত্ত্বের জ্ঞান, যাহার অপর নাম আধিবিদ্যক জ্ঞান, অসম্ভব বলিয়া মনে করিয়াছেন। তিনি বলেন যে, যে সকল মূল প্রত্যয় দ্বারা আমাদের জ্ঞান গঠিত, ইন্দ্রিয়গ্রাহ্য জগতের বাহিরে ইন্দ্রিয়াতীত তত্ত্বের ক্ষেত্রে তাহাদের কোনও অবকাশ নাই। সুতরাং ঐ সকল তত্ত্ব চিরদিনই ভা ১০৫