পাতা:Bharatkosh 1st Vol.pdf/৯৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


________________

অণুবীক্ষণ যন্ত্র বস্তুর কিছু দূরে রাখা হয়। অভিনেত্র সাধারণতঃ দুইখানা লেন্স দ্বারা গঠিত স্বল্প ফোকাস-দূরত্বের অভিসারী লেন্স। ইহাকে চোখের নিকটে রাখিতে হয়। অভিলক্ষ্য বা অবজেকটিভ তাহার সম্মুখে ঠিক ফোকাস-দূরত্বের বাহিরে অবস্থিত লক্ষ্যবস্তুর একটি বাস্তব, বিবর্ধিত ও অবশীর্ষ (inverted ) বিম্ব সৃষ্টি করে। প্রতিবিম্বটি অভিলক্ষ্যের বিপরীত দিকে অভিনেত্রের ফোকাস-দূরত্বের মধ্যে গঠিত হয় এবং ইহা অভিনেত্রের সম্মুখে বস্তুর কাজ করে। সুতরাং লেন্সের বিপরীত দিকে চোখ রাখিলে স্পষ্ট দর্শনের নিকটতম দূরত্বে অলীক, বিবর্ধিত এবং সমশীর্ষ প্রতিবিম্ব দৃষ্ট হয়। ফলে, শেষ প্রতিবিম্ব লক্ষ্য সাপেক্ষে অবশীর্ষ হয়। ka. ... +


১. বস্তু ২. অভিলক্ষ। ৩. অভিনেত্র ৪. অভিলক্ষ্যের দ্বারা গঠিত বিম্ব ৫. অভিনেত্র দ্বারা গঠিত বিবর্ধিত বিশ্ব বিবর্ধনক্ষমতা কোনও বস্তুর আপাত আকার— বস্তু-দর্শকের চক্ষুতে যে কোণ উৎপন্ন করে তাহার উপর নির্ভর করে অর্থাৎ উহার রৈখিক আকার এবং চোখ হইতে দূরত্বের উপর নির্ভর করে। কাজেই বস্তু যত চোখের নিকটে, আপাত আকার ততই বড় হয়। কিন্তু স্পষ্ট দর্শনের জন্য বস্তুকে খুব চোখের নিকটে না আনিয়া স্পষ্ট দর্শনের নিকটতম দূরত্বে রাখিতে হয়। বস্তু ও বিম্বের দৃষ্টিকোণের উপর বস্তুর আপাত আকার কতটা হইবে, তাহা নির্ভর করে। বস্তুকে লেন্সের সাহায্যে বড় করিবার ক্ষমতাকে বিবর্ধনক্ষমতা বলা হয়। অণুবীক্ষণের বিবর্ধনক্ষমতা লেন্সের ফোকাস-দূরত্বের উপর অনেকটা নির্ভর করে। ফোকাসদূরত্ব কম হইলে বিবর্ধন বেশি হইবে। | বিশ্লেষণক্ষমতাযে ক্ষমতাদ্বারা কোনও আলোক-যন্ত্র দুইটি পরস্পর-নিকটবর্তী বস্তুর একটির বিঙ্গকে অপরটির বিম্বের সহিত না মিশাইয়া উভয়কেই স্পষ্ট দর্শনে সাহায্য করে তাহাকে ঐ যন্ত্রের বিশ্লেষণক্ষমতা ( resolving power ) বলে। বিজ্ঞানের উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে আলট্রা-অণুবীক্ষণ, ইলেকট্রন-অণুবীক্ষণ প্রভৃতি যন্ত্রের আবিষ্কার হইয়াছে। ইহাদের কার্যপ্রণালী ও সাধারণ বা যৌগিক অণুবীক্ষণের