বেওয়ারিশ লাস/প্রথম পরিচ্ছেদ

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন

বেওয়ারিশ লাস

প্রথম পরিচ্ছেদ।

 একদিবস প্রাতঃকালে থানার সম্মুখে বেড়াইতেছি, এরূপ সময়ে একটী লোকের মুখে শুনিতে পাইলাম যে, রাস্তার ধারে পুলিন্দার ভিতর একটী মৃতদেহ পাওয়া গিয়াছে। যাঁহার নিকট হইতে আমি উহা শুনিতে পাইলাম, তাঁহাকে ডাকিয়া দুই একটী কথা জিজ্ঞাসাও করিলাম; কিন্তু তাঁহার নিকট হইতে কোনরূপ সন্তোষজনক উত্তর প্রাপ্ত হইলাম না। আমি তাঁহাকে জিজ্ঞাসা করিলাম, “আপনি মৃতদেহ কি নিজ চক্ষে দেখিয়া আসিয়াছেন?”

 পথিক। না।

 আমি। তবে আপনি কিরূপে জানিতে পারিলেন যে, রাস্তার ধারে পুলিন্দার ভিতর একটী লাস পাওয়া গিয়াছে?

 পথিক। আমি শুনিয়াছি।

 আমি। কাহার নিকট হইতে আপনি শুনিয়াছেন?

 পথিক। তাহার নাম ধাম জানি না। রাস্তা দিয়া একটী লোক অপর আর একজনকে বলিতে বলিতে যাইতেছিল, তাই আমি শুনিয়াছি।

 আমি। কোন্ স্থানে এবং কোন্ রাস্তায় লাস পাওয়া গিয়াছে, তাহার কিছু শুনিয়াছেন?

 পথিক। না, তাহা শুনি নাই।

 আমি। কবে পাওয়া গিয়াছে, তাহা কিছু শুনিয়াছেন?

 পথিক। আজ পাওয়া গিয়াছে।

 পথিকের এই কথা শুনিয়া একবার মনে হইল, হয় ত প্রকৃতই কোন স্থানে রাস্তার কিনারায় পুলিন্দার ভিতর একটী লাস পাওয়া গিয়া থাকিবে। ইহা যদি প্রকৃত হয়, তাহা হইলে ইহার সত্যাসত্য জানিতে অধিক বিলম্ব হইবে না, কোন না কোনরূপে এখনই তাহার সংবাদ আসিয়া উপস্থিত হইবে। আবার মনে হইল, কলিকাতা সহরে মধ্যে মধ্যে যেমন এক একটা মিথ্যা সংবাদ প্রচারিত হইয়া পড়ে, ইহাও হয় ত সেই প্রকারের কথা।

 মনে মনে এইরূপ ভাবিয়া সেই পথিককে কহিলাম, “যা’ন মহাশয়। আপনি এখন প্রস্থান করুন; কিন্তু সবিশেষরূপ না জানিয়া এরূপ কোন কথা জনসাধারণের মধ্যে কখন প্রকাশ করিবেন না। কারণ, আপনি সবিশেষরূপে নিশ্চয়ই অবগত আছেন যে, কলিকাতা সহরের মধ্যে যত প্রকার গুজব উঠে, তাহার এক তৃতীয়াংশও সত্য হয় না।”

 আমার কথা শুনিয়া পথিক সেই স্থান হইতে প্রস্থান করিলেন, আমিও সেই স্থানে বেড়াইতে লাগিলাম।

 ইহার দশ মিনিট পরেই সংবাদ আসিল, চটমোড়া একটী লাস একটী বাক্সের ভিতর বেওয়ারিশ অবস্থায় যোড়াবাগান থানায় পাওয়া গিয়াছে। এই সংবাদ পাইয়া, পূর্ব্বের সংবাদকে আর মিথ্যা গুজব বলিতে পারিলাম না। আমাদিগের যেরূপ নিয়ম আছে, সেইরূপ ভাবে যোড়াবাগানের থানায় গিয়া উপস্থিত হইলাম। তথায় বুঝিলাম যে, যে সংবাদ প্রাপ্ত হইয়াছিলাম, তাহার একবর্ণও মিথ্যা নহে।

 আমি থানায় গিয়া দেখিলাম, সেই লাসের পুলিন্দা সম্পূর্ণ রূপে খোলা হয় নাই। আমি সেই স্থানে গমন করিবামাত্রই যে খোলা হইল, তাহাও নহে। আমি সেই স্থানে উপস্থিত হইলে পর, ক্রমে উর্দ্ধতন কর্ম্মচারীগণ আসিয়া সেই স্থানে একত্র হইলেন। তাঁহারা আসিলেও বাক্সের ভিতর হইতে সেই লাস বাহির করা হইল না। ডাক্তার সাহেবকে সংবাদ প্রেরণ করা হইল, এবং করোনার সাহেবের নিকট একখানি পত্র সহ একজন কর্ম্মচারী প্রেরিত হইল। ক্রমে ডাক্তার সাহেব আসিয়া উপস্থিত হইলেন, ও কয়েকজন জুরি সমভিব্যাহারে করোণার সাহেবও আগমন করিলেন।

 এইরূপে সকলে সেই স্থানে সমবেত হইলে, যে বাক্সের ভিতর সেই মৃতদেহ রক্ষিত হইয়াছিল, তাহা সকলের সম্মুখে আনীত হইল। উহা ডবল টিনের একটী বেশ মজবুত বাক্স; কিন্তু নুতন নহে, পুরাতন। দেখিলে বোধ হয়, বহুদিবস হইতে সেই বাক্সটী অব্যবহার্য্যরূপে কোন স্থানে রক্ষিত ছিল।

 শুনিলাম, যে সময় বাক্সটী থানায় আনিয়া জমা দেওয়া হয়, সেই সময় উহাতে চাবি বন্ধ ছিল, এবং খুব মজবুত দড়িতে উহা বাঁধা ছিল। আমরা সেই স্থানে উপস্থিত হইবার পূর্ব্বেই, যে দড়ি দিয়া বাক্সটী বাঁধা ছিল, তাহা সম্পূর্ণরূপে খুলিয়া, বাক্সটীর চাবি ভাঙ্গিয়া ফেলা হইয়াছিল।

 কিরূপে বাক্সটী থানায় আসিয়া উপস্থিত হইল, কিরূপ সন্দেহের উপর নির্ভর করিয়া উহার দড়ি খুলিয়া ফেলা হইল, ও বাক্সের চাবি ভাঙ্গিয়া ফেলা হইল, প্রথমে তাহাই জানিবার প্রয়োজন বিবেচনা করিয়া একজন ঊর্দ্ধতন কর্ম্মচারী জিজ্ঞাসা করিলেন, “কোন্ কর্ম্মচারীর সম্মুখে এই বাক্সটী প্রথম থানার ভিতর আনীত হয়?”

 থানার দারোগা নিতান্ত ভীত অন্তঃকরণে উত্তর প্রদান করিলেন, “আমারই সম্মুখে প্রথমে এই বাক্স থানার ভিতর আনয়ন করে।”

 ঊর্দ্ধতন কর্ম্মচারী। কে এই বাক্স থানায় আনিয়া জমা দেয়?

 দারোগা। পোর্টকমিশনরের একজন চাপরাশি দুইজন কুলির সাহায্যে এই বাক্সটী থানার ভিতর আনয়ন করে।

 ঊর্দ্ধতন কর্ম্মচারী। পোর্ট কমিশনরের সেই চাপরাশিকে তুমি চিন?

 দারোগা। তাহাকে চিনি বৈ কি।

 ঊর্দ্ধতন কর্ম্মচারী। সে এখন কোথায়?

 দারোগা। তাহাকে আমি থানাতেই রাখিয়াছি, এই সে উপস্থিত আছে।

 ঊর্দ্ধতন কর্ম্মচারী। উহার সঙ্গে যে দুইজন কুলি ছিল?

 দারোগা। তাহারাও এখানে উপস্থিত আছে।

 ঊঃ কঃ। (চাপরাশির প্রতি) এ বাক্স তুমি কোথায় পাইলে?

 চাপরাশি। রাত্রি দুইটার পর আমি পাহারা দিবার নিমিত্ত গঙ্গার ধারে গমন করি। সেই স্থানে এই বাক্সটী আমি দেখিতে পাই।

 ঊর্দ্ধতন কর্ম্মচারী। গঙ্গার ধারে কোন্ স্থানে এই বাক্সটী ছিল?

 চাপরাশি। গঙ্গার ধারে যে সকল খোলা মাল গুদাম আছে, তাহারই একটী গুদামের ভিতর এই বাক্সটী রক্ষিত ছিল।

 ঊর্দ্ধতন কর্ম্মচারী। যে স্থানে বাক্সটী ছিল, সেই স্থানে আর কোন্ কোন্ ব্যক্তি ছিল?

 চাপরাশি। আর কেহই ছিল না, বেওয়ারিশ অবস্থায় কেবল বাক্সটীই ছিল মাত্র।

 ঊর্দ্ধতন কর্ম্মচারী। উহা যে বেওয়ারিশ, তাহা তুমি কিরূপে বুঝিতে পারিলে?

 চাপরাশি। আমি প্রথমতঃ ভাবিয়াছিলাম যে, যাহার বাক্স, সে সেই স্থানে রাখিয়া অপর কোন কার্য্য উপলক্ষে স্থানান্তরে গমন করিয়াছে, কার্য্য শেষ হইলে যখন আসিবে, সেই সময় তাহার বাক্স লইয়া যাইবে। কিন্তু অনেকক্ষণ পর্য্যন্ত অপেক্ষা করিয়া যখন দেখিলাম, সেই বাক্স লইবার নিমিত্ত কেহই আসিল না, তখন সহজেই আমি উহাকে বেওয়ারিশ মনে করিয়া আমার প্রধান কর্ম্মচারীর নিকট সংবাদ প্রেরণ করিলাম। তিনি সমস্ত ব্যাপার শুনিয়া ওই বাক্স বেওয়ারিশ বলিয়া থানায় জমা দিবার নিমিত্ত আমাকে অনুমতি প্রদান করিলেন। তাই আমি এই বাক্স আনিয়া থানায় জমা দিয়াছি।

 ঊর্দ্ধতন কর্ম্মচারী। তোমার সঙ্গে যে দুইজন কুলি আসিয়াছে, উহারা কাহারা?

 চাপরাশি, উহারা মুটিয়ার কার্য্য করে, এবং নিকটবর্ত্তী এক স্থানে থাকে। যখন আমি দেখিলাম যে, এই বাক্সটী অতিশয় ভারি, দুইজন লোক ব্যতীত কোনরূপেই উহা থানায় আনা যাইতে পারে না, তখন এই দুইজন কুলিকে আমি ইহাদিগের গৃহ হইতে ডাকাইয়া আনি, ও ইহাদিগের সাহায্যে এই বাক্সটী আমি থানায় আনিয়া উপস্থিত করি।

 ঊর্দ্ধতন কর্ম্মচারী। এই বাক্সটী থানায় জমা দিবার সময় উহার ভিতর কি আছে, তাহা তোমরা দেখিয়াছিলে কি?

 চাপরাশি। না মহাশয়! তাহা আমরা দেখি নাই। উহার ভিতর কি আছে, তাহা খুলিয়া দেখিবার নিয়ম আমাদিগের নাই। যেরূপ অবস্থায় যে কোন বেওয়ারিশ দ্রব্য পাওয়া যায়, সেইরূপ অবস্থায় তাহা আনিয়া আমরা থানায় জমা দিয়া থাকি।

 ঊর্ধ্বতন কর্ম্মচারী। তোমরা যদি এই বাক্স না খুলিয়া থাক, তাহা হইলে ইহা খুলিল কে?

 চাপরাশি। থানায় আনিবার পর দারোগা মহাশয় উহা খুলিয়াছেন। দোহাই ধর্ম্মাবতার! আমরা উহা খুলি নাই।

 ঊর্দ্ধতন কর্ম্মচারী। যে সময় দারোগা মহাশয় এই বাক্স খোলেন, সেই সময় তুমি সেই স্থানে উপস্থিত ছিলে?

 চাপরাশি। আজ্ঞা হাঁ, আমি সেই সময় সেই স্থানে উপস্থিত ছিলাম। আমার সম্মুখেই এই বাক্স খোলা হয়।

 ঊর্দ্ধতন কর্ম্মচারী। (দারোগার প্রতি) কেমন, তুমিই এই বাক্স প্রথমে খুলিয়াছিলে?

 দারোগা। আজ্ঞা হাঁ, আমি উহা খুলিয়াছিলাম।

 ঊর্দ্ধতন কর্ম্মচারী। এই বাক্স খুলিবার তোমার কি প্রয়োজন হইয়াছিল?

 দারােগা। এই বাক্স যখন জমা করিয়া দিবার নিমিত্ত থানায় আনা হয়, তখন উহার ভিতর কি দ্রব্য আছে, তাহা না জানিয়া উহা কিরূপে জমা করিয়া লইতে পারি? মনে মনে এইরূপ ভাবিয়া যে দড়ি দিয়া এই বাক্স জড়াইয়া বাঁধা ছিল, তাহা প্রথমে খুলিয়া ফেলি। তাহার পর দেখিতে পাই, বাক্সের চাবি বন্ধ আছে। সুতরাং এই চাবিও আমাকে ভাঙ্গিয়া ফেলিতে হয়। চাবি ভাঙ্গিয়া বাক্সের ডালা উঠাইয়া দেখিতে পাই যে, উহার ভিতর যে দ্রব্য আছে, তাহা আবার চটে মােড়া। তখন সেই চটের এক পার্শ্বে অতি অল্পমাত্র ফাঁক করিয়া দেখি, উহার ভিতর মৃতদেহ রহিয়াছে। এই ব্যাপার দেখিয়া আমি তৎক্ষণাৎ আমার ঊর্দ্ধতন কর্ম্মচারীকে সংবাদ প্রদান করি। তিনি উপর হইতে তৎক্ষণাৎ নীচে আগমন করেন, এবং স্বচক্ষে এই ব্যাপার দর্শন করিয়া পরিশেষে আপনাদিগের নিকট সংবাদ প্রদান করেন।

 ঊর্ধ্বতন কর্ম্মচারী। থানার কেতাবে তুমি এই বাক্স জমা করিয়া লইয়াছ?

 দারােগা। না।

 ঊর্ধতন কর্ম্মচারী। কেন?

 দারােগা। বাক্সের ভিতর যখন কোন দ্রব্য পাইলাম না, অথচ লাস বাহির হইয়া পড়িল, তখন আর কি জমা করিয়া লইব?