রূপান্তর/বেদ : সংহিতা ও উপনিষৎ/১৩

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

সত্যকামোহজাবালো জবালাং মাতরমামন্ত্রয়াঞ্চক্রে
ব্রহ্মচর্যং ভবতি বিবৎস্যামি কিংগোত্রোহন্বহমস্মীতি ।
সা হৈনমুবাচ নাহমেতদ্‌ বেদ তাত যদ্‌গোত্রস্ত্বমসি
বহ্বহং চরন্তী পরিচারিণী যৌবনে ত্বামলভে
সাহমেতন্ন বেদ যদ্‌গোত্রস্ত্বমসি
জবালা তু নামাহমস্মি সত্যকামো নাম ত্বমসি
স সত্যকাম এব জাবালো ব্রুবীথা ইতি ।
  
স হ হারিদ্রুমতং গৌতমমেত্যোবাচ
ব্রহ্মচর্যং ভগবতি বৎস্যাম্যুপেয়াং ভগবন্তমিতি ।
তং হোবাচ কিং গোত্রো নু সোম্যাসীতি ।
স হোবাচ নাহমেতদ্‌ বেদ ভো যদ্‌গোত্রোহ হম স্মি
অপৃচ্ছং মাতরং
সা মা প্রত্যব্রবীদ্‌ বহ্বহং চরন্তী পরিচারিণী যৌবনে ত্বামলভে
সাহমেতন্ন বেদ যদ্‌গোত্রস্ত্বমসি
জবালা তু নামাহমস্মি সত্যকামো নাম ত্বমসীতি সোহহং
সত্যকামো জাবালোহস্মি ভো ইতি ।
তং হোবাচ নৈতদব্রাহ্মণো বিবক্তুমর্হতি
সমিধং সোম্যাহরোপ ত্বা নেষ্যে
ন সত্যাদগা ইতি ।
                — ছান্দোগ্যোপনিষৎ , ৪ . ৪
  
সত্যকাম জাবাল মাতা জবালাকে বললেন ,
     ‘ ব্রহ্মচর্য গ্রহণ করব , কী গোত্র আমার ?'
তিনি বললেন , ‘ জানি নে , তাত , কী গোত্র তুমি ।
            যৌবনে বহুপরিচর্যাকালে তোমাকে পেয়েছি ;
            তাই জানি নে তোমার গোত্র ।
জবালা আমার নাম , তোমার নাম সত্যকাম ,
            তাই বোলো তুমি সত্যকাম জাবাল । '
সত্যকাম বললে হারিদ্রুমত গৌতমকে ,
     ‘ ভগবন্‌ , আমাকে ব্রহ্মচর্যে উপনীত করুন । '
তিনি বললেন , ‘ সৌম্য , কী গোত্র তুমি ?'
সে বললে , ‘ আমি তা জানি নে ।
     মাকে জিজ্ঞাসা করেছি আমার গোত্র কী ।
তিনি বলেছেন — যৌবনে যখন বহুপরিচারিণী ছিলেম
                             তোমাকে পেয়েছি ।
আমার নাম জবালা , তোমার নাম সত্যকাম ,
     বোলো আমি সত্যকাম জাবাল । '
  
তিনি তখন বললেন , ‘ এমন কথা অব্রাহ্মণ বলতে পারে না ।
            সত্য থেকে নেমে যাও নি তুমি ।
সমিধ আহরণ করো সৌম্য , তোমাকে উপনীত করি । '