মানসী/দেশের উন্নতি

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

দেশের উন্নতি

বক্তৃতাটা লেগেছে বেশ,
রয়েছে রেশ কানে—
কী যেন করা উচিত ছিল,
কী করি কে তা জানে!
অন্ধকারে ওই রে শােন্
ভারতমাতা করেন গ্রোন
এ হেন কালে ভীষ্ম দ্রোণ
গেলেন কোন্‌খানে।
দেশের দুখে সতত দহি
মনের ব্যথা সবারে কহি,
এসাে তাে করি নামটা সহি
লম্বা পিটিশানে।
আয় রে ভাই, সবাই মাতি,
যতটা পারি ফুলাই ছাতি,
নহিলে গেল আর্যজাতি
রসাতলের পানে।

উৎসাহেতে জ্বলিয়া উঠি
দু হাতে দাও আলি।
‘আমরা বড়াে’ এ যে না বলে
তাহারে দাও গালি।

কাগজ ভরে লেখাে রে লেখাে,
এমনি করে যুদ্ধ শেখাে,
হাতের কাছে রেখাে রে রেখো
কলম আর কালি।
চারটি ক’রে অন্ন খেয়াে,
দুপুরবেলা আপিস যেয়াে,
তাহার পরে সভায় ধেয়ো,
বাক্যানল জ্বালি।
কাঁদিয়া লয়ে দেশের দুখে
সন্ধেবেলা বাসায় ঢুকে
শ্যালীর সাথে হাস্যমুখে
করিয়াে চতুরালি।

দূর হউক এ বিড়ম্বনা
বিদ্রূপের ভান।
সবারে চাহে বেদনা দিতে
বেদনাভরা প্রাণ।
আমার এই হৃদয়তলে
শরমতাপ সতত জ্বলে,
তাই তাে চাহি হাসির ছলে
করিতে লাজ দান।
আয়-না ভাই, বিয়ােধ ভুলি—
কেন রে মিছে লাথিয়ে তুলি

পথের যত মতের ধুলি
আকাশ-পরিমাণ।
পরের মাঝে ঘরের মাঝে
মহৎ হব সকল কাজে,
নীরবে যেন মরে গাে লাজে
মিথ্যা অভিমান।

ক্ষুদ্রতার মন্দিরেতে
বসায়ে আপনারে
আপন পায়ে না দিই যেন
অর্ঘ্য ভারে ভারে।
জগতে যত মহৎ আছে
হইব নত সবার কাছে,
হৃদয় যেন প্রসাদ যাচে
তাঁদের দ্বারে দ্বারে।
যখন কাজ ভুলিয়া যাই
মর্মে যেন লজ্জা পাই,
নিজেরে নাহি ভুলাতে চাই।
বাক্যের আঁধারে।
‘ক্ষুদ্র কাজ ক্ষুদ্র নয়’
এ কথা মনে জাগিয়া রয়,
বৃহৎ ব’লে না মনে হয়
বৃহৎ কল্পনারে।

‘পরের কাছে হইব বড়ো’
এ কথা গিয়ে ভুলে
বৃহৎ যেন হইতে পারি
নিজের প্রাণমূলে।
অনেক দূরে লক্ষ্য রাখি
চুপ করে না বসিয়া থাকি
স্বপ্নাতুর দুইটি আঁখি
শূন্য-পানে তুলে।
ঘরের কাজ রয়েছে পড়ি—
তাহাই যেন সমাধা করি,
‘কী করি’ বলে ভেবে না মরি
সংশয়েতে দুলে।
করিব কাজ নীরবে থেকে,
মরণ যবে লইবে ডেকে
জীবনরাশি যাইব রেখে
ভবের উপকূলে।

সবাই বড়ো হইলে তবে
স্বদেশ বড়ো হবে,
যে কাজে মােরা লাগাব হাত
সিদ্ধ হবে তবে।
সত্যপথে আপন বলে
তুলিয়া শির সকলে চলে—

মরণভয় চরণতলে
দলিত হয়ে রবে।
নহিলে শুধু কথাই সার,
বিফল আশা লক্ষবার,
দলাদলি ও অহংকার
উচ্চ কলরবে।
আমােদ করা কাজের ভানে,
পেখম তুলি গগন-পানে
সবাই মাতে আপন মানে—
আপন গৌরবে।

বাহবা কবি, বলিছ ভালাে,
শুনিতে লাগে বেশ।
এমনি ভাবে বলিলে হবে
উন্নতি বিশেষ।
‘ওজস্বিতা’ ‘উদ্দীপনা’
ছুটাও ভাষা-অগ্নিকণা,
আমরা করি সমালােচনা
জাগায়ে তুলি দেশ।
বীর্যবল বাঙ্গালার
কেমনে বলাে টিঁকিবে আর,
প্রেমের গানে করেছে তার
দুর্দশার শেষ।

যাক্-না দেখা দিনকতক
যেখানে যত রয়েছে লোক।
সকলে মিলে লিখুক শ্লোক
‘জাতীয়’ উপদেশ।
নয়ন বাহি অনর্গল
ফেলিব সবে অশ্রুজল,
উৎসাহেতে বীরের দল
লােমাঞ্চিতকেশ।

রক্ষা করাে! উৎসাহের
যােগ্য আমি কই!
সভাকাঁপানো করতালিতে
কাতর হয়ে রই।
দশ জনাতে যুক্তি ক’রে
দেশের যারা মুক্তি করে,
কাঁপায় ধরা বসিয়া ঘরে,
তাদের আমি নই।
‘জাতীয়’ শোকে সবাই জুটে
মরিছে যবে মাথাটা কুটে,
দশ দিকেতে উঠিছে ফুটে
বক্তৃতার খই,
হয়তাে আমি শয্যা পেতে
মুগ্ধ হিয়া আলস্যেতে

ছন্দ গেঁথে নেশায় মেতে
প্রেমের কথা কই।
শুনিয়া যত বীরশাবক
দেশের যাঁরা অভিভাবক
দেশের কানে হস্ত হানে,
ফুকারে হৈ হৈ !

চাহি না আমি অনুগ্রহ-
বচন এত শত।
‘ওজস্বিতা’ ‘উদ্দীপনা’
থাকুক আপাতত।
পষ্ট তবে খুলিয়া বলি—
তুমিও চলাে, আমিও চলি,
পরস্পরে কেন এ ছলি
নির্বোধের মতাে!
ঘরেতে ফিরে খেলো গে তাস,
লুটায়ে ভুঁয়ে মিটায়ে আশ
মরিয়া থাকো বারোটি মাস
আপন আঙিনায়।
পরের দোষে নাসিকা গুঁজে
গল্প খুঁজে গুজব খুঁজে
আরামে আঁখি আসিবে বুজে
মলিন-পশু-প্রায়।

তরল হাসি-লহরী তুলি
রচিয়ো বসি বিবিধ বুলি,
সকল কিছু যাইয়াে ভুলি—
ভুলাে না আপনায়!

আমিও রব তােমারি দলে
পড়িয়া এক ধার—
মাদুর পেতে ঘরের ছাতে
ডাবা হুঁকোটি ধরিয়া হাতে
করিব আমি সবার সাথে
দেশের উপকার।
বিজ্ঞভাবে নাড়িব শির,
অসংশয়ে করিব স্থির
মােদের বড়ো এ পৃথিবীর
কেহই নহে আর।
নয়ন যদি মুদিয়া থাকো
সে ভুল কভু ভাঙিবে নাকো,
নিজেরে বড়াে করিয়া রাখাে
মনেতে আপনার ।
বাঙালি বড়ো চতুর, তাই
আপনি বড়াে হইয়া যাই,
অথচ কোনাে কষ্ট নাই—
চেষ্টা নাই তার।

হোথায় দেখাে খাটিয়া মরে,
দেশে বিদেশে ছড়ায়ে পড়ে,
জীবন দেয় ধরার তরে
ম্লেচ্ছসংসার!

ফুকারো তবে উচ্চরবে
বাঁধিয়া এক সার-
মহৎ মােরা বঙ্গবাসি
আর্যপরিবার !

১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৮৮৮