মুর্শিদাবাদ-কাহিনী

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

ঐতিহাসিক চিত্র
মুর্শিদাবাদ-কাহিনী

 

“দিল্লী, মুর্শিদাবাদ হইবে এখন,
মুসল্মান-গৌরবের সমাধি-ভবন৷”

 

শ্রীনিখিলনাথ রায়, বি. এল.

 

Logo of Puthipatra publishers.tif
৯ এ্যান্টনি বাগান লেন, কলিকাতা-৭০০ ০০৯

প্রকাশক:
এইচ্. এল্. সাহা
পুথিপত্র
৯ এ্যান্টনি বাগান লেন,
কলিকাতা-৭০০ ০০৯

 

সরকারী আনুকূল্যে প্রাপ্ত কাগজে মুদ্রিত

 

মুদ্রক:
বি. রায়
রায় প্রিন্টার্স
৯ এ্যান্টনি বাগান লেন, কলিকাতা-৭০০ ০০৯

 

ভূমিকা

 মুর্শিদাবাদ বাঙ্গলা, বিহার, উড়িষ্যার শেষ মুসলমান রাজধানী। অষ্টাদশ শতাব্দীর বাঙ্গলার সমস্ত রাজনৈতিক ব্যাপারের সহিতই মুর্শিদাবাদের সম্বন্ধ। এইখান হইতেই বাঙ্গলার মুসলমানরাজত্বের অবসান ও ব্রিটিশরাজত্বের প্রতিষ্ঠা হয়। এইজন্য মুর্শিদাবাদের ইতিহাসালোচনা অত্যন্ত প্রীতিপ্রদ বলিয়াই বোধ হয়। প্রায় পাঁচ বৎসর অতীত হইল, আমি মুর্শিদাবাদের ইতিহাস-সঙ্কলনে প্রবৃত্ত হই। তন্নিমিত্ত আমাকে অনেক প্রাচীন ফারসী ও ইংরেজী গ্রন্থ এবং পুরাতন কাগজপত্রাদি দেখিতে ও মুর্শিদাবাদের নানা স্থান পরিভ্রমণ করিতে হইয়াছে। এতদুপলক্ষে মুর্শিদাবাদের নবাব-বাহাদুরের উপযুক্ত দেওয়ান মান্যবর শ্রীযুক্ত খন্দকার ফজল রব্বী খাঁ বাহাদুর ও শ্রদ্ধাস্পদ শ্রীযুক্ত বাবু দীনবন্ধু সান্ন্যাল মহাশয় আমাকে উৎসাহ প্রদান করিয়া কোন কোন ঐতিহাসিক তত্ত্ব অবগত করাইয়াছেন। দেওয়ানবাহাদুর গুরুতর কার্যভার মস্তকে লইয়াও ইতিহাসচর্চায় আপনার জীবন সমপণ করিয়াছেন; তাঁহার অধ্যবসায়ের ফলে অনেক নূতন নূতন ঐতিহাসিক তত্ত্বের আবিষ্কার হইতেছে। দীনবন্ধু বাবু প্রায় দশ বৎসর পূর্বে মুর্শিদাবাদের ইতিহাস লিখিতে প্রবৃত্ত হন; কিন্তু নানা কারণে তাঁহার যত্ন সফল হয় নাই। এই দুই মহাত্মার উৎসাহে আমি অনেক দূর অগ্রসর হইতে পারিয়াছি। মুর্শিদাবাদের ইতিহাসের দুই এক খণ্ড লিখিত হইয়াছে, শীঘ্রই যন্ত্রস্থ করার ইচ্ছা আছে। ইতিহাসসঙ্কলনে প্রবৃত্ত হইয়া আমি যে সকল প্রবন্ধ সংবাদ ও মাসিক পত্রিকায় প্রকাশ করিয়াছিলাম, তাহাদের সহিত আরও কতকগুলি যোগ করিয়া ‘মুর্শিদাবাদ-কাহিনী’ নামে এই গ্রন্থ প্রকাশিত হইল। ‘মুর্শিদাবাদ-কাহিনী’ মৎপ্রণীত মুর্শিদাবাদের ইতিহাসের একরূপ পূর্বাভাষ। সাধারণে অষ্টাদশ শতাব্দীর বাঙ্গলার ইতিহাসের একটি চিত্র ইহাতে দেখিতে পাইবেন। কাহিনীর প্রবন্ধগুলি ধারাবাহিকরূপে নির্দেশ করিতে চেষ্টা করা হইয়াছে। এই প্রবন্ধগুলির অধিকাংশই মুর্শিদাবাদ-হিতৈষী, সাহিত্য, নব্যভারত, সৎসঙ্গ, ভারতী প্রভৃতি পত্রিকায় প্রকাশিত হইয়াছিল। এই সমস্ত প্রবন্ধ লেখার সময় সিরাজউদ্দৌলা প্রভৃতির প্রণেতা, মূর্তিমান্ অধ্যবসায়, সুপ্রসিদ্ধ ঐতিহাসিক শ্রীযুক্ত বাবু অক্ষয়কুমার মৈত্রের সহিত পরিচয় হওয়ায়, আমরা পরামর্শ করিয়া ঐতিহাসিক চিত্র নামে একটি সংস্করণ প্রকাশ করিতে ইচ্ছা করিয়াছি। সেইজন্য ‘মুর্শিদাবাদ-কাহিনী’ ঐতিহাসিক চিত্রের অন্তর্ভূত হইল। কোন কোন ঐতিহাসিক তত্ত্বের জন্য আমি অক্ষয়বাবুরও নিকট ঋণী আছি। তিনি কয়েকখানি চিত্র প্রদান করিয়া আমাকে আরও উপকৃত করিয়াছেন। আর কয়েকখানি চিত্রের জন্য আমার প্রিয়বন্ধু বহরমপুর কলেজের বিজ্ঞানাধ্যাপক শ্রীযুক্ত বাবু মোহিনীমোহন রায়, এম্. এ. এবং উক্ত কলেজের ড্রয়িংশিক্ষক শ্রীপূর্ণচন্দ্র দাস আমাকে যথেষ্ট সাহায্য করিয়াছেন। সাহিত্য-সম্পাদক প্রিয়বন্ধু শ্রীযুক্ত বাবু সুরেশচন্দ্র সমাজপতির ঐকান্তিক যত্নে পলাশীযুদ্ধের মানচিত্র ‘মুশিদাবাদ-কাহিনী’তে স্থান পাইয়াছে। বহরমপুর কলেজের আরবীর ও ফারসীর অধ্যাপক মৌলবী মহম্মদ মফীজুদ্দীনের নিকট আমি বিশেষরূপে ঋণী আছি। তাঁহার সাহায্য ব্যতীত কদাচ ফারসী গ্রন্থ ও কাগজাদি হইতে ঐতিহাসিক তত্ত্বের উদ্ধার করিতে পারিতাম না। জগৎশেঠ গোলাপচাঁদ ও বঙ্গাধিকারী প্রতাপনারায়ণ রায়মহাশয় তাঁহাদের ফার্মান পাঠাইয়া আমাকে উপকৃত করিয়াছেন। জঙ্গীপুরের শ্রীযুক্ত বাবু অনাথবন্ধু চট্টোপাধ্যায়ের নিকট হইতে গিরিয়া যুদ্ধের গ্রাম্য-কবিতা, আমার প্রিয়বন্ধু বসন্তকুমার রায়ের নিকট হইতে পলাশীযুদ্ধের গ্রাম্য-গীত ও কাটোয়াযুদ্ধের গ্রাম্য কবিতার কিয়দংশ, ও বিধুপাড়ার শ্রীযুক্ত বাবু কালিদাস পালের নিকট হইতে কাটোয়াযুদ্ধের সম্পূর্ণ কবিতাটি প্রাপ্ত হইয়াছি। তজ্জন্য তাঁহাদিগকে ধন্যবাদ প্রদান করিতেছি। আমার প্রিয়বন্ধু শ্রীযুক্ত বাবু ব্রজেন্দ্রকুমার বসু, বি. এল. কোন কোন ফর্মার প্রুফ সংশোধন করিয়া যথেষ্ট সাহায্য করিয়াছেন। মুর্শিদাবাদ-হিতৈষীর সম্পাদক শ্রীযুক্তবাবু বনওয়ারীলাল গোস্বামী ‘মুর্শিদাবাদ-কাহিনী’র প্রকাশক হইতে ইচ্ছা করিয়া আমাকে উপকৃত করিয়াছেন। এই সকল মহাত্মার নিকট আমি অন্তরের সহিত কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করিতেছি। ঐতিহাসিক বিবরণ সম্পূর্ণ হওয়া কঠিন; একজনের চক্ষে কখনও সমস্ত ঘটনা পড়িতে পারে না। এইজন্য যদি গ্রন্থের কোন কোন স্থানে ত্রুটি লক্ষিত হইয়া থাকে, তাহা হইলে পাঠকগণ ক্ষমা করিবেন। ভরসা করি, ভবিষ্যতের ঐতিহাসিক সে সমস্ত ত্রুটির সংশোধন করিয়া লইবেন। নানা কারণে প্রুফসংশোধনের গোলযোগ ঘটায়, স্থানে স্থানে দুই চারিটি ভ্রম লক্ষিত হইবে; তজ্জন্য পাঠকগণের নিকট ক্ষমা প্রার্থনা করিতেছি। এক্ষণে সাধারণের ‘মুর্শিদাবাদ-কাহিনী’কে স্নেহের চক্ষে দেখিলে যারপরনাই আনন্দলাভ করিব। ইতি

বহরমপুর
১২ই শ্রাবণ
১৩০৪ সাল

গ্রন্থকার

এই লেখাটি বর্তমানে পাবলিক ডোমেইনের আওতাভুক্ত কারণ এটির উৎসস্থল ভারত এবং ভারতীয় কপিরাইট আইন, ১৯৫৭ অনুসারে এর কপিরাইট মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে। লেখকের মৃত্যুর ৬০ বছর পর (স্বনামে ও জীবদ্দশায় প্রকাশিত) বা প্রথম প্রকাশের ৬০ বছর পর (বেনামে বা ছদ্মনামে এবং মরণোত্তর প্রকাশিত) পঞ্জিকাবর্ষের সূচনা থেকে তাঁর সকল রচনার কপিরাইটের মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যায়। অর্থাৎ ২০১৯ সালে, ১ জানুয়ারি ১৯৫৯ সালের পূর্বে প্রকাশিত (বা পূর্বে মৃত লেখকের) সকল রচনা পাবলিক ডোমেইনের আওতাভুক্ত হবে।