রাজমালা (ভূপেন্দ্রচন্দ্র চক্রবর্তী)/দ্বিতীয় পরিচ্ছেদ/৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
 

(৫)

মাণিক্য উপাধি দান

 গৌড়েশ্বর একদা কুমারকে জিজ্ঞাসা করেন—“আচ্ছা কুমার, তোমাকে এত রোগা দেখাইতেছে কেন, ত্রিপুরেশ্বর কি তোমার খাওয়া পরার জন্য উপযুক্ত অর্থ পাঠান না?” কুমার রত্ন তখন নিজের দুঃখের কথা নিবেদন করিলেন। বলিলেন, আমার পিতা তাঁর পুত্রগণকে রাজ্যের ভিন্ন ভিন্ন অংশে ছোট ছোট রাজা করিয়া দিয়াছেন, আমারই ভাগ্যে কিছু জুটে নাই, আমাকে প্রবাসে গৌড়েশ্বরের নিকট পাঠাইয়াছেন। এই কথা শুনিয়া গৌড়েশ্বর ভিতরে ভিতরে কুপিত হইলেন, মনে মনে হয়ত ভাবিলেন প্রবাসে পাঠানর উদ্দেশ্য হইতেছে একে দূরে রাখা। এক মুখ হাসিয়া রত্নকে কহিলেন—“ওঃ! এইজন্য মুখশ্ৰী তোমার মলিন? আচ্ছা কুমার কিছু ভাবিও না, আমি এর ব্যবস্থা করিতেছি!”

 নবাবের যেই কথা সেই কায, চক্ষের ইঙ্গিতে গৌড় সেনা যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হইল। নির্দ্দিষ্ট দিনে গৌড় কটক কুমার রত্নকে ত্রিপুরার সিংহাসনে বসাইবার জন্য যাত্রা করিল। এদিকে ত্রিপুরা রাজ্যে সংবাদ রটিয়া গেল যে রত্ন গৌড়সেনা লইয়া পিতার রাজ্য জয় করিতে আসিতেছেন। মহারাজ ডাগর রত্নের তীক্ষ্ণধীর পরিচয় পাইয়া পূর্ব্বেই এরূপ অনুমান করিয়াছিলেন। রত্ন জামির গড় অবধি আসিয়া পড়িলেন এবং গড় জিনিয়া ঝড়ের বেগে রাঙ্গামাটি জয় করিয়া ফেলিলেন। তখন তাঁহার সতের ভাই রণে ভঙ্গ দিয়া পলায়ণ করিলেন। মহারাজ ডাগর সে সময় খানাসি শৈলাবাসে ছিলেন, সেইখানেই তাঁহার মৃত্যু হয়। পিতার পরলোক গমনে এবং ভাইদের পরাজয়ে ত্রিপুরা রাজা রত্নের হাতের মুঠোর মধ্যে আসিয়া পড়িল। ত্রিপুর সিংহাসনে প্রতিষ্ঠিত হইয়া রত্ন কিছুকাল পরে গৌড়েশ্বর ভেট করিবার জন্য হস্তী প্রভৃতি বহু মূল্য উপহার সহ যাত্রা করেন। এই সময়ে একটি উল্লেখযোগ্য ঘটনা ঘটে।

 মহারাজ রত্ন ফা গৌড়েশ্বরকে একশত হস্তীর সহিত একটি অত্যুজ্জ্বল ভেকমণি উপহার প্রদান করিলে তিনি বিশেষ সন্তুষ্ট হইয়া তাঁহাকে “মাণিক্য” উপাধি প্রদান করেন। গৌড়েশ্বরের অভিপ্রায়ে ফা উপাধি ত্যাগ করা হয় এবং সেই দিন হইতে অদ্যাবধি ‘মাণিক্য’ উপাধি ত্রিপুরেশ্বরের নামের সহিত যুক্ত হইয়া আছে। এইভাবে নবাবের সম্মান ও স্নেহ লাভ করিয়া মহারাজ রত্নমাণিক্য স্ব-রাজ্যে ফিরিয়া গেলেন। এই ঘটনা ত্রয়োদশ শতাব্দীর শেষ ভাগে ঘটে।

 গৌড়েশ্বরের বিশেষ অনুগ্রহে বঙ্গের প্রজাদিগের কতক ত্রিপুররাজ্যের অধিকারে নেওয়া হয়, সেই সময় হইতেই প্রসিদ্ধ বাঙ্গালী পরিবার ত্রিপুর রাজ্যবাসী হয়।