শ্রীশ্রীহরি লীলামৃত/আদি খণ্ড/প্রথম তরঙ্গ/৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন


অথ দারুব্রহ্মে গৌরাঙ্গ মিলন

পয়ার

নবদ্বীপে আসি গোরা জীব উদ্ধারিল।
পরে শ্রীপুরুষোত্তমে লীলা সম্বরিল।।

একদিন ভক্তগণ সঙ্গেতে করিয়া।
কীর্ত্তন করেন গোরা নাচিয়া নাচিয়া।।
মন্দিরের দ্বারে গিয়া ভক্তগণ সঙ্গে।
জগন্নাথে বেড়িয়া নাচেন নানা রঙ্গে।।
নাচিতে নাচিতে প্রবেশিল শ্রীমন্দিরে।
প্রেমে মত্ত জগন্নাথে প্রদক্ষিণ করে।।
নাচিতে নাচিতে প্রেমে পুলকিত অঙ্গ।
জগন্নাথ মুখচন্দ্রে পলিশ গৌরাঙ্গ।।
কীর্ত্তনান্তে গৌর বিনে সকলে অস্থির।
সবে বলে প্রভু কেন না হয় বাহির।।
অতি উৎকণ্ঠিত সবে উচাটন মন।
মন্দির ভিতরে সবে করিল গমন।।
কেহ বা বাহিরে কেহ মন্দির ভিতর।
সবে কাঁদে না দেখিয়া গৌরাঙ্গ সুন্দর।।
প্রভু না দেখিয়া সবে করে হাহাকার।
কেহ বা ধরায় পড়ে জ্ঞান নাহি আর।।
কেহ বা মুর্চ্ছিত হ’য়ে পড়েছে ধরায়।
কেহ বা চৈতন্য পেয়ে করে হায় হায়।।
কেহ বা জগবন্ধুর পদ ধরি কয়।
কেহ জগবন্ধু জগবন্ধু সে কোথায়।।
কেহ ধরে হস্ত পদ কেহ ধরে কোল।
মোদের গৌরাঙ্গ কোথা বোল বোল বোল।।
এক দৃষ্টে কেহ করে মুখ দরশন।
মুখ মধ্যে দেখে তার গেরুয়া বসন।।
বসনের কোন ধরি টানিতে লাগিল।
অরুন বসন তায় বাহির হইল।।
গৌরাঙ্গের ভক্ত যত জগন্নাথে কয়।
আহারে রাক্ষস তোরে কে করে প্রত্যয়।।
কে বলে ঈশ্বর তোরে কে করে বিশ্বাস।
গৌরাঙ্গ খাইলি ওরে দুরন্ত রাক্ষস।।
খাইলি গৌরাঙ্গ মন্দিরেতে পেয়ে একা।
ভাল যদি চাস তবে শ্রীগৌরাঙ্গ দেখা।।
শ্রী গৌরাঙ্গ লীলা সাঙ্গ শ্রীক্ষেত্র উৎকল।
রসনা রসনা ভরি হরি হরি বল।।








শাস্ত্রপ্রচার প্রেস,

৫নং ছিদামমুদির লেন , দর্জ্জিপাড়া হইতে

শ্রীকুলচন্দ্র দে দ্বারা মুদ্রিত।