পাতা:আত্মচরিত (৪র্থ সংস্করণ) - শিবনাথ শাস্ত্রী.pdf/২১

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


পরিচ্ছেদ ] বাড়ীতে অশান্তি y আনন্দিত হইলেন এবং আমাকে “বাবা বাবা” করিয়া ডাকিতে লাগিলেন । বাড়ীতে অশান্তি ।-আমাব এতটা অভ্যর্থনা আমার বড় পিসীর সহ্য হইল না। কয়েক বৎসব পূর্বে আমার কাকার মৃত্যু হওয়াব পর, ও ছোটপিসী শ্বশুবালয়ে যাওয়াব পাব, তিনি নিজ পুত্রকন্যাগণকে লইয়া গৃহের কত্রী হইয়া বসিয়াছিলেন। সে ভিটা যে তঁহাকে কোনও দিন পরিত্যাগ কবিতে হইবে, তাহা বোধ হয় স্বপ্নেও জানিতেন না। গৃহকৰ্ত্ত স্বীয় পিতামতেৰ হাতে নুতন বংশধবেব এই আদর দেখিয়া তাহার আব-এক চিন্তাব উদয় হইল। তিনি বুঝিলেন, তিনি এতদিন ভিতরে থাকিয়াও বাহিবে বহিয়াছেন । ইহাব পর্ব হইতে আমাৰ মাতব প্ৰতি তাহাব দারুণ বিরুদ্ধভাব জন্মিল এবং ননদে ও ভাজে মন-কষাকষি আবন্ত হইল। তাহার ফলস্বরূপ আমাব মা আমাকে দেখিতেন না । মনেব রাগে প্ৰভাত হইতে বেল দ্বিপ্রহরী পৰ্য্যন্ত অনাহারে রান্নাঘরে সংসারের কাজে নিমগ্ন থাকিতেন, আমি চেচাইয়া মরিয়া যাইতাম, একবার ফিরিয়া চাহিতেন না। বড় কঁাদিলে আমাব পিসতুতো বোনেরা কোলে কবিয়া রান্নাঘবে লইয়া গিয়া উনানের নিকট হইতে স্তনপান করাইয়া আনিত। কিন্তু রাগের দুধ খাইয়া খাইয়া আমার ঘোর উদরাময় জন্মিল ; যেমন দুধ পান করিতাম, তেমনি দুধ বাহির হইয়া যাইত। অল্প দিনের মধ্যে রাগে ও অনাহারে মায়ের বুকের দুধ, শুকাইয়া গেল। তখন আমার জীবন-সংকট উপস্থিত। রক্তভেদ ও রক্তবমন আরম্ভ হইল। তখন মারি চক্ষু স্থির হইল। তিনি সমস্ত দিন সংসারের কাজে থাকিতেন/মন্ত রাত্রি আমাকে কোলে করিয়া বসিয়া কঁাদিতেন, এবং মধ্যে মধ্যে আমার মুখে জল দিতেন। এই অবস্থাতে একদিন আমার পিসীর অনুপস্থিতি-কালে আমার মা আমার প্রপিতামহের ক্রোমৃেত্যু