পাতা:আত্মজীবনী ও স্মৃতি-তর্পন - জলধর সেন.pdf/৮৭

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


ལུང་༽ན། ༄e ཟླའི་རྩ་ད་སྐྱ་ ويمو “আমি প্রেস স্থাপন ও কতিপয় বৎসর গ্রামবাৰ্ত্তার কার্য নির্বাহ করিয়া ক্ৰমেই ঋণগ্রন্ত হইতে লাগিলাম,-দেখিয়া আমার ছাত্র কুমারখালীর বাঙ্গলা পাঠশালার প্রধান শিক্ষক প্ৰসন্নকুমার বন্দ্যোপাধ্যায় ও অন্য কয়েকজন বন্ধুবান্ধব, DBDBD DB BBDBBD SDDDS sBDK SLE S SBDBBBD DBB SS DuD লাগিলেন । তাহার কয়েক বৎসর কার্য নিৰ্বাহ করিলে, আমি কাগজপত্ৰ আলোচনা করিয়া দেখিলাম, পূর্ব ও পরে একত্রিত হইয়া সর্বশুদ্ধ ১২০ • বারশত টাকা ঋণ হইয়াজে । এদিকে আমার শরীব ক্রমেই বাৰ্ধক্য জরার নিকটবতী হইতেছে । অতএব, আর ঋণবৃদ্ধি হওয়া উচিত হয় না। মনে করিয়া গ্রামবাৰ্ত্তার कार्षा कक कब्रिघ्र। भिलाभ । [ २७98 श्रृं: ] শ্ৰীমান ব্ৰজেন্দ্ৰনাথ কাঙাল হরিনাথের স্বহস্তে-লিখিত ডায়েরী থেকে কয়েকটি, স্বান উদ্ধৃত করেছেন!! কাঙিলের এই বিস্তৃত ডায়েরী আমাদের এক অমূল্য সম্পদ। কিন্তু সেই ডায়েরী আন্থোপাস্ত প্ৰকাশ করা সম্ভবপর নয়। তাহাতে নানা বিপদ-আপদের সম্ভাবনা আছে । সেই কারণে কঙালের ডায়েরী তার পরলোকগমনের পর এই সুদীর্ঘকাল অপ্ৰকাশিত অবস্থায় পড়েই রয়েছে। আমরা কেউই সেই ডায়েরী আমূল প্ৰকাশের চেষ্টা করিনি এবং ভবিষ্যতেও করব না । সেই ডায়েরীতে “গ্রামবাৰ্ত্তা প্ৰকাশিকা’ সম্বন্ধে যে কথাগুলি আছে, শ্ৰীমান ব্ৰজেন্দ্ৰনাথ অনেক স্থল বাদ দিয়া প্ৰকাশ করেছেন । ঐ ডায়েরী উদ্ধৃত অংশের শেষ দিকে তিনি বলেছেন, “পণ্ডিত প্ৰসন্নকুমার বন্দ্যোপাধ্যায় এবং আরও দু’একজন বন্ধু “গ্রামবাৰ্ত্তার”। শেষ ভার গ্ৰহণ করেছিলেন।” সেই আরও* দু’একজন বন্ধুর মধ্যে আমিও একজন। আমি তখন গোয়ালন্দে মাষ্টারী করি। “গ্রামবাৰ্ত্তা”র যা কিছু কাজ, পূজনীয় প্রসন্ন পণ্ডিত মশাই করতেন। আমি প্রতি শনিবার রাত্রে গোয়ালন্দ মেলে কুমারখালীতে আসতাম, পরদিন রবিবারে পণ্ডিত মহাশয়কে যথাসাধ্য সাহায্য করতাম । পণ্ডিত মহাশয় সম্পাদক পদ গ্ৰহণ করতে কিছুতেই সন্মত হননি। তাই শেষের দু’বছর আমার নামই সম্পাদক হিসাবে ছিল। কাজ যা কিছু পণ্ডিত মহাশয়ই করতেন-এবং গ্রীষ্মাবকাশের সময়ে সুপ্ৰসিদ্ধ ঐতিহাসিক অক্ষয়কুমার মৈত্ৰেয় যখন বাড়ীতে থাকিতেন তখন তার মূল্যবান সাহায্য পণ্ডিত মহাশয় ८°ख्भ । এইখানে আর একটি কথার উল্লেখ করেই “গ্রামবাৰ্ত্তা প্ৰকাশিকা’র সঙ্গে আমার সম্বন্ধের কথা শেষ করব। আমি যখন “গ্ৰামৰাৰ্ত্তা’র তথাকথিত সম্পাদক,