পাতা:আমার বাল্যকথা ও আমার বোম্বাই প্রবাস.pdf/২৩৬

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


* १७ আমার বোম্বাই প্রবাস গুজরাট গগনে ধূমকেতুর স্তায় উদয় হইল। তাহার সামাজিক প্রবন্ধ সকল হিন্দু সমাজের চক্ষুঃশূল হইয়া দাড়াইল, বিশেষতঃ র্তাহার ভাটিয়া জাতভাইদের তীব্র বিষদৃষ্টি তাহার উপর নিপতিত হইল। ভাটিয়াদের অধিকাংশ লোক বল্লভপন্থী বৈষ্ণব। তাহদের ব্যবসাবুদ্ধি যেমন তীক্ষ ধৰ্ম্ম বিষয়ে গোড়ামীও তেমনি প্রবল। তাহারা মহারাজের একান্ত অনুরক্ত ভক্ত শিষ্য। গোসাইজী মহারাজ তাহদের চক্ষে স্বয়ং শ্রীকৃষ্ণ ভগবানের অবতার, ভক্তগণ তমুমনধনে তাহার সেবায় রত | মহারাজ র্তাহার অনুচরবর্গের রাজভক্তি গ্রহণ করিয়াই তুষ্ট নহেন, তাহদের নিকট হইতে দেবপূজার দাবী করেন। তাই তাহার আরতি বন্দন, তাহাকে নৈবেদ্য অর্পণ, বসন ভূষণে র্তাহার দেহমগুন, তাহার আসন পাদুক। অর্চন, তাহার উচ্ছিষ্ট ভোজন ও চরণামৃত পান,—এক কথায় বিষ্ণু-মন্দিরে মহারাজ দেবতার আসন অধিকার করিয়া বসিয়াছেন। এ সকল তবুও ত পদে আছে, ইহা অপেক্ষ সহস্ৰগুণে নিন্দনীয় জঘন্ত পাপাচার যাহা উল্লেখ করিতেও অঙ্গ শিহরিয়া উঠে, তাহ এই যে, বৈষ্ণব কুলবধূগণ এই পার্থিব কৃষ্ণসেবায় আপনাদের সতীত্ব উৎসর্গ করিয়া আপনাদিগকে গৌরবান্বিত মনে করেন। করসনদাস এই সমস্ত বীভৎস কাণ্ড অবারিত করিয়া ভাটিয়ামণ্ডলীর মধ্যে মহা হুলস্থল BBDD BBBS BBB BB BBBB BBB BBB BBB BBB BBB S র্তাহাকে নানা প্রলোভন দেখাইয়া থামাইবার চেষ্ট হইল—হিন্দু সমাজের অমোঘ বাণ যে জাতি বহিষ্কার,– সেই বাণ সন্ধানের উদ্যোগ হইতে লাগিল কিন্তু মহারাজের অমুচর বর্গের মন্ত্রতন্ত্র সকলি ব্যর্থ হইল। ১৮৬০ সালে গোসাইজী মহারাজ মুরাট হইতে বোম্বায়ে পদার্পণ করেন। তঁহার আগমনে “সত্য-প্রকাশের” মতামত লইয়া বিষম আন্দোলন উপস্থিত হয়। মহারাজ যুক্তি তর্কে ন পারিয়া অশাস্ত্রীয় পাষণ্ড মতের পরিপোষক বলিয়া সম্পাদকের উপর কটুকটব্য বর্ষণ আরম্ভ করিলেন। করসনদাস তাহাতে পিছপাও হইবার পাত্র নহেন, তিনি তাহদের আপনাদের অস্ত্রেই তাহাদের সহিত যুদ্ধে ও বৃত্ত হইলেন। বেদ উপনিষদ পুরাণাদি শাস্ত্রের বচন হইতে বল্লভী মত খণ্ডন করিতে লাগিলেন এবং তাহীদের অশাস্ত্রীয় ঘৃণিত আচার ব্যবহার সর্বত্র ঘোষণা করিয়া দিলেন। অক্টোবর ১৮৬০ সালের এক প্রকাশিত প্রবন্ধ এই নিন্দাবাদের চূড়ান্ত সীমায় পৌছে। তাহাতে বিপক্ষদল কোন উচ্চবাচ্য না করিয়া কিছুকাল ধৈর্য্য ধরিয়া রহিল, কয়েক মাসান্তে কোথাও কিছু নাই হঠাৎ “সত্য-প্রকাশের” সম্পাদক ও প্রকাশকের নামে সুপ্রিম কোর্টে এক লাইবেল মকৰ্দমা অনিয়া উপস্থিত। তাহার উত্তরে প্রতিবাদীর বক্তব্য এই যে, তাহার প্রবন্ধে লাইবেল