পাতা:আরোগ্য - মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/১৬৪

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


কেন, আবার উনি গর্জন করে উঠতে পারতেন না যে একটা বজাত তার মেয়েকে বাগাতে না পেরে তার ওপর গায়ের বাল বাড়ছে-এ অন্যায় বরদাস্ত করা চলবে না ?

আপনি দেখেছি সব জানেন ।
জানি বৈকি ।

ঃ বাবার শরীর খুব খারাপ, তা জানেন ? সারাজীবন খেটে খেটে বাবা আমাদের জন্যহ পুলিশ হাত তোলা মাত্ৰ কেশব সশব্দে গাড়ীতে ষ্টাট দিয়ে ইলেকট্রিক হর্ণ টা চেপে রেখে আগের গাড়ী কটাকে ডিঙ্গিয়ে গিয়ে জোরে গাড়ী চালায় । ললন ভয়াৰ্ত্ত কণ্ঠে বলে, আমার নিয়ে সু্যইসাইড করবেন ? আমি তো কোন ক্ষতি করি নি। আপনার ! মনে মনে কেশবের হাসি পায়। ষ্টিয়ারিং হুইলে একটু গলদ আছে, সেটা মারাত্মক হতে পারে অনায়াসেই । কিন্তু গলদটা তার ভাল করেই জানা আছে, দু'আঙ্গুল বঁাচান রেখে সে গাড়ী লরী মানুষ লেম্পপেষ্ট ঘেষে গাড়ীটাকে চড়া স্পিডে নিরাপদে চালিয়ে নিয়ে যেতে পারে । লালন বার বার সুইসাইড করার কথা বলছে কেন ? আপিস ফেরত আনিমেষকে নিয়ে সে নাকি সুইসাইড করতে চেয়েছিল । আজ ললনাকে নিয়ে তার নাকি সুইসাইড করার ঝোক চেপেছে। আত্মহত্যা করার কথা স্বপনেও তার মনে আসেনি। এরা বাপে বেটিতে সিদ্ধান্ত করেছ যে মাথায় তার বিকার আছে সে আত্মহত্যা कदू5 53 । N90