পাতা:আর্য্য-নারী দ্বিতীয় ভাগ.djvu/৫৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

( to Vié-et নিশ্চয়ই টোডা উদ্ধারে সমর্থ হইবেন। মুগ্ধ বীরাঙ্গনা মনে মনে বীরযুবককে আত্মসমর্পণ করিলেন। পিতৃরাজ্য উদ্ধার করিবেন বলিয়া বাল্যাবধি অতি যত্নে তিনি যুদ্ধবিদ্যায় দক্ষতা লাভ করিয়াছেন ; আজ এই বীরযুবকের সহায়তা করিয়া তার সকল শিক্ষা সার্থক করিবার, প্রাণের নিতান্ত পোষিত বাসনা পূর্ণ করিবার, যোগ্য অবসর উপস্থিত। তারাবাই পৃথি রাজের সঙ্গে যুদ্ধে যাইবেন মনস্থ করিয়া পিত্তা অনুমতি প্রার্থনা করিলেন। রাওশুরতান কহিলেন,-“মা, তুমি বীরোচিত অস্ত্রবিদ্যায় শ্রেষ্ঠ শিক্ষালাভ করিয়াছ। তোমার যুদ্ধ গমনে আমার কোন ভয়, চিন্তা বা আপত্তির কারণ নাই। কিন্তু এই বীরযুবকের সঙ্গে থাকিয়া স্বভাবতই, তোমার মন হঁহার প্রতি আকৃষ্ট হইবে। আমার পণ তুমি জান। যদি ইনি টোড উদ্ধারে সমর্থ না হন, ইহার সঙ্গে তোমার বিবাহ সম্ভব হইবে না। কেবল তাই নয়, যদি ইহার পর আর কোন বীর টোডা উদ্ধার করিতে পারেন, তবে তাহাকেই তোমার পতিত্বে বরণ করিতে হইবে।” তারা কহিলেন,-“পিতা, আমি এখনই ইহার প্রতি আকৃষ্ট। যাহাতে ইনি টােড উদ্ধার করিতে পারেন, প্রাণপণে সেই চেষ্টা করিবার জন্যই ইহার সঙ্গে যুদ্ধে যাইতে চাই। যদি তিনি নিতান্তই টােডা উদ্ধারে অসমর্থ হন,তাহাতে আপনি চিন্তিত হইবেন না । আপনার পণে আমিও বাধ্য। সেই পণ রক্ষায়, আপনার সম্মানরক্ষার জন্য, স্বদেশের উদ্ধারে ক্রুয়ামি কঠোরতম