পাতা:এলিজিবেথ.pdf/১৮০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে চলুন অনুসন্ধানে চলুন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।

এলিজিবেথ। * * * * লেম, এবং কছিলেন, “ দোহাই পরমেশ্বর ! আমি সত্য ভিন্ন কিছুই বলি নাই। আমি পিতার উপরে ক্ষম প্রার্থনা করিতে তবলস্কের ওদিকহইতে আসিতেছি। আপনার কুপ। করিয়া আমাকে রক্ষা করুন। অন্ততঃ অধিরাজের অনুমতি পাওয়া পৰ্য্যন্ত তামাকে প্রণে বিনষ্ট করিবেন না ।” এলিজিবেথের মুখহইতে এই রূপ খেদোক্তি শুনিতে শুনিতে শ্রোতাদিগের মন বিচলিত হইয়া উঠিল । অনেকেই তাঁহাকে মুক্ত করাইবার জন্য স্কুল ঝুঁকি লইতে উদ্যত হইলেন। তাহাদিগের মধ্যে এক ব্যক্তির দয়া সৰ্ব্বাপেক্ষ অধিক ছিল । তিনিই চেকীদারদিগকে কছিলেন, “ শুন কে রক্ষিগণ ! চকের মধ্যে সেন্ট বেসিন নামক যে সরাই আছে, আমি তাঙ্কার অধিকারী । আমি এই বালিকাকে এই রাত্রিকালে সেখানে রাখিতে চাই, ইকার বিবৱণ শুনিয়া বড়ই দুঃখবোধ হইতেছে, ইহাকে আমি সঙ্গে করিয়া লইয়া যাইব ।’ তাহার নিতান্ত ক্লেশের কথা শুনিয়া প্রহরীদিগেরও অন্তঃকরণ কিছু লোল হইয়াছিল, সুতরাং সেই প্রস্তবে তাছারা সম্মত হইল এবং তখনি সেই স্থানহইতে প্রস্থান করিল। এলিজিবেথ যৎপরোনাস্তি উপকৃত হইয়া সেই সদয় প্রাণরক্ষক মহোদয়ের পা দুখানি আলিঙ্গন করিয়া ধরিলেন। উপকারক ব্যক্তিও অনুগ্রহ পূর্বক তাঙ্গাকে হাত ধরিয়া তুলিলেন এবং তুমি আমার সঙ্গে সঙ্গে আইস বলিয়া চকের ভিতর দিয়া আপনার বাটীর দিকে গমন করিতে লাগিলেন। গমন করিতে করিতে তাহাকে কছিলেন, “ দেখ! আমি তোমাকে স্বতন্ত্র একটী ঘর ছাড়িয়। •দিতে পারি না। আজি আমার ঘর একখানিও খালি নাই, য়ৰ কয়েক খানিই ষোড়া আছে। তুমি গিয়া মামার স্ত্রীর ধারু- শয়ন করিয়া থাক। তাহার দয়ায় স্বভাব। তিনি Q 3