পাতা:ঐতিহাসিক চিত্র (প্রথম বর্ষ) - নিখিলনাথ রায়.pdf/১৫২

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8 R * ঐতিহাসিক চিত্র । , বের জন্য আর একটি প্রদেশ গঠনের প্রয়োজন। বেশ কথা, তাহাই যদি হয়, তাহা হইলে বঙ্গের অঙ্গচ্ছেদ না করিয়া বিহার, ছোটনাগপুর ও উড়িষ্যার মধ্যে কোন কোনটি বঙ্গ হইতে বিচ্ছিন্ন করিয়া লইলে কি দোষ হয় ? যে সমস্ত প্রদেশে ভিন্ন ভিন্ন ভাষা প্রচলিত আছে, তাহাদিগকে পৃথক করিয়া দিলেইত ভাল হয়। বাস্তবিক যদি বঙ্গের ছোটলাটের শ্রমলাঘবের জন্য অন্য একটি প্রদেশ গঠনের চেষ্টা হয়, তাহা হইলে যে পশ্চিম বঙ্গ ও পূর্ববঙ্গে এক ভাষা প্রচলিত, একই । জাতির বাস, একই আচার ব্যবহার অনুষ্ঠিত হয়, তাহাকে দ্বিখণ্ড করার কি । প্রয়োজন ? বঙ্গের ছোটলাটের এত কি পরিশ্রম তাহা আমরা ক্ষুদ্রবুদ্ধি বুঝিতে পারি না । ভাল তাহাই যদি হয়, তবে বাঙ্গলাকে দিখণ্ড করা কেন ? অন্যান্য প্ৰদেশ সরাইয়া লইলে কি হয় না ? লর্ড কার্জনের কি উদ্দেশ্য আমরা বুঝিতে পারি না । তবে আমাদের বিবেচনা হয়। তিনি উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের ন্যায় একটা উত্তর-পূর্ব সীমান্ত প্রদেশ গঠন করিবার জন্য ব্যস্ত হইয়াছেন। এই সীমান্তে কেবল রুসিয়ার নহে। কিন্তু চীন, জাপানেরও কথাটা ভাবিয়া দেখা হইয়াছে। চীনের কথা বলিলাম, কারণ জাপান চীনকে সজীব করিয়া তুলিবার চেষ্টা করিতেছে। কাজেই ভবিষ্যতে ভারত্নের উত্তর-পূর্ব প্রদেশে কিরূপ রাজনৈতিক পরিবর্তন ঘটবে তাহা কে বলিঙে স্পারে ? नैष्ठरङः ইহা চিন্তা করিয়া লর্ড কার্জন বাহাদুর এই প্রদেশ গঠনে ব্যগ্র হইযাৰ্ছেন। সুতরাংকেবল আসামে একটি প্রদেশ গঠিত হয় না, তাই বঙ্গের শিরশেছদের আয়োজন হইতেছে। এই উদ্দেশ্য সাধনের সঙ্গে সঙ্গে যদি বাঙ্গলা দুইভাগে বিভক্ত হইয়া যায়, তাহাই ’বা মন্দ কি ? তবে আমাদের বিবেচনায় বাঙ্গলার বিভাগ করা গৌণ উদ্দেশ্য। মুখ্য উদ্দেশ্য একটি নূতন সীমান্ত প্রদেশের গঠন। আমাদের মনে যাহা হয় আমরা তাহাঁই ব্যক্ত করিতে পারি। নতুবা লর্ড কার্জনের রাজনীতি বুঝিবার ক্ষমতা লইয়া কয়টি মস্তিষ্ক আমাদের দেশে জন্মিয়াছে ? যে উদ্দেশ্যে হউক, বঙ্গের শিরশেছদ হইলে এই কবন্ধ দেশের অবস্থা অত্যন্ত শোচনীয় হইয়া উঠিবে।