পাতা:ঐতিহাসিক চিত্র (প্রথম বর্ষ) - নিখিলনাথ রায়.pdf/৩৫৫

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


১ম বর্ষ, ৮ম সংখ্যা ] 崛 [ চৈত্র, ১৩১১ { 5ञ्चिका gressup পলাশীর বিশাল প্ৰান্তরে সিরাজউদ্দৌলার ভাগ্যলক্ষ্মী মূৰ্ছিত হইয়া পড়িলে, ইংরেজের বিজয়-নিশান বঙ্গের ভাগ্যাকাশে চিরদিনের জন্য উডডীয়মান হয় । ক্লাইবের অমোঘ ৰাণী মীরজাফরকে বাঙ্গলা, বিহার, উড়িষ্যার নবাব নাজিম বলিয়া ঘোষণা করিলে, মুর্শিদাবাদের সিংহাসন কিছুকালের জন্য তঁহাকে আশ্রয় প্ৰদান করে। যদিও মীরজাফর বাঙ্গলা, বিহার, উড়িষ্যার নবাব নাজিমী পদে প্ৰতিষ্ঠিত হইয়াছিলেন, এবং দিল্লীর বাদসহ তজজন্য তঁহাকে সনন্দ প্ৰদান করিয়াছিলেন, তথাপি তিনি ইংরেজ ইষ্ট ইণ্ডিয়া কোম্পানীর তাৎকালিক কৰ্ম্মচারিগণের আজ্ঞাকারীমাত্র ছিলেন। যাহাঁদের সাহায্যে জাফর বাঙ্গলা, বিহার, উড়িষ্যার অধীশ্বর হইয়াছিলেন, তাহাদেরই পরামর্শে তিনি যে চালিত হইবেন, ইহাতে সন্দেহ কি ? ফলতঃ ওপলাশী যুদ্ধের পর যদিও ইংরেজের স্বহস্তে বঙ্গরাজ্যের শাসনভার প্রহণ করেন নাই, এবং দেশীয় নবাবদিগকে মুর্শিদাবাদের সিংহাসন স্পর্শ করিবার অধিকার প্রদান করিয়াছিলেন, তথাপি তাহারাই যে প্রকৃত প্ৰস্তাবে সর্বেসর্ব ছিলেন, ইহাই জ্বলন্ত, সত্য। মীরজাফর বল, মীরকাসেমষ্টি বল, সকলেই তাঁহাদের অনুগ্রহে ও } সাহায্যে বঁঙ্গিলা, বিহার, উড়িষ্যায়ু নবাব নাজিমী নাম ব্যবহারের অধিকার । পাইয়াছিলেন। তাহার পর ক্ৰমে সেই অধিকারের সঙ্কোচ করিয়া ইষ্ট । ইণ্ডিয়া কোম্পানী বঙ্গরাজ্যের-অবশেষে সমগ্ৰ ভারতের ভাগ্য-বিধাতা হইয়া । উঠেন । 品 যে কোম্পানী নবাব মীরজাফর বা জাফর আলি খাকে মুর্শিদাবাদের . সিংহাসন প্ৰদান করিয়াছিলেন, সেই আজ্ঞাকারী কৃতজ্ঞ বন্ধু যে, তাঁহা,