পাতা:ঐতিহাসিক চিত্র (প্রথম বর্ষ) - নিখিলনাথ রায়.pdf/৬০

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


8 डिश्ॉजिक यि । অবরোধ করিয়াছেন। অনেক দিন সেই পার্বত্য প্রদেশে অবরুদ্ধ থাকায় আবদুল্লার সৈন্য মধ্যে আহাৰ্য্যের দারুণ অভাব লক্ষিত হইতে লাগিল । একে তাহার সৈন্যগণ অত্যন্ত তৃষ্ণায় কাতর, তাহার পর তাহদের মস্তকোপরি প্রস্তরখণ্ড ও শাণিত কৃপাণ বুলিতেছিল। অবশেষে ক্রমে ক্রমে তাহারা মৃত্যুমুখে পতিত হইতে লাগিল। খৃষ্ট্রীয় সপ্তদশ শতাব্দীতে রাজপুতানার রন্ধ পথে মহারাণা রাজসিংহ কর্তৃক দাম্ভিক সম্রাট আরংজেবের যে দুৰ্দশা ঘাঁটিয়াছিল, তাহার সহস্ৰ বৎসর পূর্বে রত্নপাল ও আবদুল্লার মধ্যেও সেইরূপ অভিনয় সংঘটিত হইয়াছিল। সৈন্যগণের এরূপ দুরবস্থার সময় সন্ধি ভিন্ন আবদুল্লার মনে আর কোনও উপায়ের উদয় হইল না। অগত্যা তিনি আপনাকে ও নিজ সেনাগণকে অনাহার ও শাণিত কৃপাণ হইতে রক্ষা করার জন্য রত্নপালের সহিত সন্ধিবন্ধনে প্ৰবৃত্ত হইলেন। কাবুলজয় দূরে থাকুক, অবশেষে তিনি কাবুলরাজকে সাত লক্ষ মুদ্রা প্ৰদান করিয়া কোন রূপে সে যাত্ৰা মৃত্যুমুখ হইতে আপনাকে ও আপনার বাহিনীকে রক্ষা করিতে সমর্থ হইয়াছিলেন। ইহার পর হজাজ পুনৰ্ব্বার কাবুলজয়ে মনোনিবেশ করেন। আৰদুল্লার শোচনীয় পরাজয়ে হজাজি। আপনাকে অত্যন্ত অবমানিত মনে করিয়াছিলেন । সেই অপমানের প্রতিশোধের জন্য তাঁহার হৃদয় অত্যন্ত অধীর হইয়া উঠে। তিনি সেই সুচতুর হিন্দুরাজকে দমন করিবার জন্য পুনর্বার বদ্ধপরিকর হইলেন। এইবার তিনি আবদুল্লা অপেক্ষা জনৈক দক্ষ সেনানীর প্রতি কাবুলজয়ের ভার অর্পণ করিলেন । তাহার আদেশানুসারে খৃষ্টীয় ৭০ ০ অব্দে তাহার পরাক্রান্ত সেনাপতি আবদর রহমান এক বিপুল আরব বাহিনী লইয়া কাবুলে উপস্থিত হন। আরব সৈন্যগণের পদভরে কাবুল টলমল করিতে লাগিল, তাহদের শাণিত কৃপাণ ঝলসিত হইয়া উঠিল। কিন্তু রত্নপালও নিতান্ত পশ্চাৎপদ হন। নাই। যদিও আরব যোদ্ধাগণের নিকট র্তাহার সৈন্যগণ স্থানে স্থানে পরাজিত হইয়াছিল, তথাপি তাহারা আরবদিগকে কাবুল অধিকার করিতে দেয় নাই। আবদর রহমান কেবল স্থানে স্থানে লুণ্ঠন করিয়াই সিস্তানে প্ৰত্যাবৃত্ত श्वांছিলেন। আবদুল্লার ন্যায় তিনিও কাবুল-অধিকারে সমর্থ হন নাই।