পাতা:ঐতিহাসিক চিত্র (প্রথম বর্ষ) - নিখিলনাথ রায়.pdf/৬৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


রণজিৎ সিংহ ও ইংরাজ । No হইতে দেখিয়া বিস্মিত ও সম্ভবতঃ কিঞ্চিৎ ভীতও হইয়াছিলেন। তিনি দ্রুতগতিতে দূতের নিকট উপস্থিত হইয়া এই বিষয়ের জন্য ক্রটি মার্জনা করিতে অনুরোধ করিলেন এবং তদুপলক্ষে হিন্দুস্থানী সিপাহীদিগের বিশেষ প্ৰশংসা করিলেন । সুশাসিত ভাবে নিয়মবদ্ধ হইয়া কাৰ্য্য করিলে কিরূপ ফল দর্শে তাহা দেখিয়া । মহারাজ স্তম্ভিত হইয়াছিলেন। তখন নেপোলিয়নের হুজুক কমিয়া গিয়াছিল। মহারাজ শীঘ্রই ইংরাজের অন্যান্য কথায় সম্মত হইলেন ও শতদ্রুর দক্ষিণ তীরে র্তাহার সৈন্যগণকে ফিরাইয়া আনিলেন এবং ইংরাজের সহিত সন্ধি স্থাপন করিয়া চিরসৌখ্য বন্ধনে বদ্ধ হইলেন। এ বন্ধন কখন ছিন্ন হয় নাই। এই ব্যাপারের অবসান সুখপ্ৰদ হইলেও মেটকাফের পক্ষে তাহার ” অনুচরগণকে শিখদিগের পবিত্র রাজধানীতে তাহাদিগকে এরূপে অবমানিত করিতে দেওয়া কতদূর বুদ্ধিমানের কাৰ্য্য হইয়াছিল সে বিষয়ে সন্দিহান হইতে পারা যায়। যখন আমরা দেখিতে পাইতেছি যে, মুসল্মানদিগের পূর্বতন। রাজধানী দিল্লীনগরী কোন পবিত্ৰ তীৰ্থ না হইলেও তথায় শত চেষ্টাসত্ত্বে হিন্দু মুসল্মানের মধ্যে মহরম-উপলক্ষে প্রায়ই রক্তপাত হয়, তখন একশত বর্ষ পূর্কে এই রূপে শিখদিগের পবিত্ৰ মহানগরীতে মহরম উৎসব করা যে বিশেষ নিৰ্ব্ববুদ্ধিতার পরিচায়ক তাহাতে সন্দেহ নাই। উহাতে সানুচর মেটকাফের লোপ ও এমন কি শিখ ও ইংরাজে একটি যুদ্ধ ঘটলেও ঘটতে পারিত। যে সময়ের ইংরাজ কৰ্ম্মচারিগণ সকল বিষয়েইমূৰ্ত্তিপূজক ভারতবাসীর কুসংস্কার দেখিতেন ও দেখিয়া স্বভাবতঃ অভিজাতোচিত ঘূণায় চক্ষু ফিরাইতেন, সে সময়ে ধৰ্ম্ম প্ৰাণ শিখগণ যে কত অল্পে বিচলিত হইত, মেটকাফ তাহা যে বুঝিতেন না, ইহা কিছুমাত্ৰ আশ্চর্য্যের বিষয় নহে। (ক্রমশঃ) শ্ৰীবোধিসত্ত্ব সেন। Nausragmamagis 9 angsungangsugno