পাতা:কবিকঙ্কণ-চণ্ডী (প্রথম ভাগ) - চারুচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায়.pdf/২২৮

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


Qbro কবিকঙ্কণ-চণ্ডী দিগ্বিজয়-বৰ্ণনায় দেখা যায় যে তিনি কলিঙ্গ জয় কবিয়া দক্ষিণ দেশে অগ্রসর হইতে না হইতে কাবেৰী নদীব তীবে উপস্থিত হইলেন । এই বর্ণনা কলিঙ্গজনপদের সনাক্ত ব্যাপারে যথেষ্ট সহায়তা করিতেছে। শক্তিসঙ্গম-তন্ত্রে প্রকাশ যে জগন্নাথেব পূৰ্ব্বদিক হইতে কৃষ্ণাতীব পৰ্য্যন্ত কলিঙ্গদেশ। বলা নিম্প্রয়োজন যে এ মতটিব সহিত বেশ সামঞ্জস্য বহিয়াছে রঘুবংশের মতের । পুণ্যশ্লোক মহাবাজ অশোকের অনুশাসনেও উল্লেখ রহিয়াছে যে তিনি কলিঙ্গদিগকে কৃষ্ণানদী পৰ্য্যন্ত জয় কবিয়াছিলেন । খৃষ্টীয় ৭ম শতাব্দীব চীনা পবিব্রাজক ইউএনসাং কলিঙ্গদেশে ভ্ৰমণে আসিয়াছিলেন। তার ভ্রমণবৃত্তান্ত হইতে স্পষ্ট প্রতীয়মান হয় যে প্ৰাচীন কলিঙ্গ ও বর্তমান গঞ্জাম-ভিজাগপত্তন প্রদেশ প্রায় পূৰাপূবি অভিন্ন। পাঠক দেখিতে পাইবেন যে চীনা পরিব্রাজকোব কলিঙ্গ ও কবি কালিদাসেব কলিঙ্গ অবস্থান হিসাবে অভিন্ন । কোলব্রুক সাহেব বলেন যে কলিঙ্গ জনপদ গোদাববীতটপ্রদেশেই বর্তমান ছিল (Essays, II, 179 ) Ilulitzsch's South Indian Inscriptions 24t করে যে প্ৰাচীন কলিঙ্গ গোদাবৰী ও মহানদীব মধ্যে অবস্থিত ছিল । দশম ও একাদশ খৃষ্ট শতাব্দীতে চালুক্যবাজগণেব শাসনাধীনে কলিঙ্গরাজ্য উত্তবে উৎকল ও দক্ষিণে চোলমণ্ডল পয্যন্ত বিস্তৃত ছিল । কলিঙ্গদেশেব দক্ষিণ অংশ ‘তেলিঙ্গা”। “তেলিঙ্গা’ শব্দেব মূল লইঘা যতই মতভেদ থাকুক না কেন উহা যে কলিঙ্গেব অংশবিশেষ সে বিষয়ে কোন সন্দেহ নাই । প্রাচীন কলিঙ্গেব বক্তমানে আব্ব কোন চিহ্ন নাই । সে বাজ্য ও তার গৌরব স্বপ্নসম লুপ্ত হইয়াছে। কেবলমাত্ৰ সমদ্রতাবস্ত ‘কলিঙ্গপত্তন’ ও গোদাবরীব মোহানাস্থিত ‘কবিঙ্গ’ নগব কালেব প্ৰহাবীর হাত এড়াইয়া সেই অতীত যুগেব ‘গজসাধন’, ‘কলিঙ্গ’ রাজ্যের জন্ণমৃতি জাগাইয়া দিবাব প্ৰয়াস পাইতেছে । সকল দিক দেখিয়া বিচাবি কবিলে একথা বেশ জোব কবিয়াই বলা যায় যে উৎকল ও কলিঙ্গ অভিন্ন নয় এবং বর্তমান উড়িষ্যার দক্ষিণ দিকেই কৃষ্ণানদী পৰ্য্যন্ত কলিঙ্গবাজ্য বিস্তৃত ছিল । তবে একথাও ঠিক যে কলিঙ্গগণ এক সময় উৎকল পৰ্য্যন্ত রাজ্য বিস্তাব করিয়াছিল এবং সেই কারণেই কোথাও কোথাও উড়িষ্যা ও কলিঙ্গ অনেকটা অভিন্ন এইরূপ আভাস পাওয়া যায়।”-শ্ৰীহরিচরণ 5ggioोंक्षIात्र । (7वानों, भाव २७२४, १२२-९२७ १छे) ) “অতি প্ৰাচীন কাল হইতেই কলিঙ্গদেশেব বর্ণনা অনেকেই করিয়াছেন। অশোকের কলিঙ্গ-বিজয় প্রসঙ্গে শ্ৰীযুক্ত চারুচন্দ্ৰ বসু (অশোক, অষ্টম অধ্যায়) ইহার নানা বর্ণনা উদ্ধত করিয়াছেন। ‘মহাভারত হরিবংশ ও কালিদাসের বর্ণনা হইতে