পাতা:কলিকাতা সেকালের ও একালের.djvu/৮৭৯

উইকিসংকলন থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এই পাতাটির মুদ্রণ সংশোধন করা প্রয়োজন।


চতুৰ্ব্বিংশ অধ্যায়। b-8為 কাশীমিত্রের ঘাট ষ্ট্রট । কাশীপ্রসাদ, মিত্র, ইতিহাস প্রসিদ্ধ রাজ রাজবল্লভের ভাগিনেয় । স্থার জ্যেষ্ঠ পুত্র, রায় রামপ্রসাদ মিত্র বাহাদুর, গবর্ণমেণ্টের তোষাখানায় নওয়ান হইয়াছিলেন। ইহার অন্যতম পুত্র, বাবু গোপাল লাল মিত্ৰ হাইকোটের উকীল ছিলেন । কাশী মিত্র মহাশয়ের নামে আজও একটা ঘাট কলিকাতা সহরে বর্তমান। এখানে শবদাহ হইয়া থাকে। এই ঘাট কোণী-মিত্রের ঘাট” বলিয়া সাধারণে পরিচিত। কাশী-ঘোষের ষ্ট্রীট। ঐকৃষ্ণ ঘোষ, সেকালের কলিকাতার একজন নামজাদা লোক । তিনি পারসী-ভাষায় অতি সুপণ্ডিত ছিলেন। তাছার পুত্র রামদেব ঘোষ, কৃষ্ণনগর রাজবাড়ীতে বক্সীর কাজ করিয়া প্রচুর ধন সঞ্চয় করেন। রামদেবের পুত্র রামলোচন। রামলোচনের পুত্ৰ—কাশীনাথ ঘোষ। কাশী ঘোষ, স্বনামপ্রসিদ্ধ ধনী শ্রেষ্ঠ রামদুলাল দের পরম বন্ধু ছিলেন। পূর্বেই বলিয়াছি, রামদুলাল ক্রেরপতি হইবার পূৰ্ব্বে, মদন দত্তের সরকার ছিলেন । এই মদন-দত্তের পুত্র কাশীপ্রসাদ দত্ত মহাশয়, হিন্দু সমাজ বিগর্হিত অখাদ্যাদি খাওয়ায়, তৎকালীন কায়স্থ-সমাজ, ইহাকে একঘরে করিবার চেষ্টা পান। রামদুলাল, তাহার ভূতপূৰ্ব্ব মনিব পুত্রকে জাতিতে তুলিতে এক “সমন্বয়” সভার অনুষ্ঠান করেন । ইহাতে অনেক বড় বড় কুলীন কায়স্থ ও ব্রাহ্মণ নিমন্ত্রিত হন । এই কাৰ্য্যে রামজুলালের দুই লক্ষ টাকা ব্যয় হইয়াছিল। র্তাহার বন্ধু কাশী ঘোষও প্রায় ত্রিশ হাজার টাকা ব্যয় করিয়াছিলেন । এই সমন্বয়ের ফলে-- কাশীপ্রসাদ দত্ত পুনরায় কায়স্থসমাজে গৃহিত হন। কাশী ঘোষ, সেকালের স্বপ্রসিদ্ধ ফেয়ারলি ফারগুসান কোম্পানীর বাড়ীর মুৎসুদি ছিলেন । এই কার্য্যে তিনি প্রচুর অর্থোপাৰ্জন করেন। দান-ধ্যানও তাহার বিস্তর ছিল। মৃত্যুকালে ইনি ছয় পুত্র রাখিয়া যান। জগদীশনাথ রায়ের লেন । । এই গলিট হরিঘোষের ষ্ট্ৰীট হইতে আরম্ভ হইয়াছে। , ,বাৰু ধীশনাথ রায়ের নামে এই গলির নামকরণ হইয়াছে। জগদীশ বাৰু একজন স্বনামধন্ত পুরুষ। কাচরাপাড়া হইতে আসিয়া, ইনি-কলিকাগুর

  • و به د